আজ ফোর-জির যুগে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ

 4-G
ad

জাগরণ ডেস্ক: ফোর-জি বা চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল-ইন্টারনেট সেবার তরঙ্গ নিলামের পর আজ লাইসেন্স হস্তান্তর করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এর মধ্যদিয়ে টু-জি, থ্রি-জির পর এবার ফোর-জির যুগে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ঢাকা ক্লাবে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদের উপস্থিতিতে মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছে লাইসেন্স হস্তান্তর করা হবে।

এরপরই মোবাইল অপারেটরগুলো চালু করবে বহুল প্রতীক্ষিত চতুর্থ প্রজন্মের এই মোবাইল নেটওয়ার্ক সেবা। টেলিকম নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ ফোর-জি/এলটিই হস্তান্তরের পরে মোবাইল ফোন গ্রাহকরা দ্রুততম তথ্য পরিষেবা সুবিধা গ্রহণে সক্ষম হবেন।

বলা হচ্ছে, ইন্টারনেটের গতি আগের থেকে অন্তত চারগুণ বাড়বে। এক জিবির একটি ফাইল ডাউনলোড করতে থ্রিজি নেটওয়ার্কে যেখানে ২০ মিনিট লাগছে, ফোর-জিতে সেটি পাঁচ মিনিটে সম্ভব হবে। তবে সবকিছুই নির্ভর করছে অপারেটরদের সেবা দেয়ার মানসিকতার ওপর।

কারণ ফোর-জিতে ইন্টারনেটের প্যাকেজ কত দামের হবে, সেটা আসলে গ্রাহকদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকবে কিনা, সেসব নিয়ে এখন মানুষের প্রশ্ন। এই মুহূর্তে বাংলাদেশে মাত্র ১০ ভাগ গ্রাহকের হাতে আছে ফোর-জি ব্যবহার করার মতো সেট।

২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফোর-জি ইন্টারনেট সেবা শুরুর পরিকল্পনা ছিল টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের। সেক্ষেত্রে পরিকল্পনা ছিল ২০ ফেব্রুয়ারি, মঙ্গলবার ফোর-জি সেবার লাইসেন্স হস্তান্তর করা হবে। কিন্তু পরবর্তীতে সেই পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনা হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আজ সোমবারই লাইসেন্স হস্তান্তর করা হবে।

অপারেটররা জানিয়েছে, ফোরজির জন্য তারা পুরোপুরি প্রস্তুত। লাইসেন্স পেলেই তারা গ্রাহকদের সেবা দিতে বিলম্ব করবে না।ফলে আজ থেকেই এই সেবা গ্রাহকরা পাওয়া শুরু করবেন।

গ্রামীণ ফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাইকেল ফলি বলেন, আমরা যখন লাইসেন্স হাতে পাবো তখনই আমাদের ফোর-জি যাত্রা শুরু হবে এবং আমাদের গ্রাহকের জন্যও এটি তাৎপর্যপূর্ণ অভিযাত্রা। গ্রামীণ ফোন তাদের সর্বোত্তম টেকনোলজি ও পণ্য দিয়ে গ্রাহকদের সেবা প্রদান করে যাচ্ছে।

রবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, ফোর-জি লাইসেন্স প্রাপ্তির কয়েক মিনিটের মধ্যে রবি ফোর-জি সেবা চালু করবে।

বাংলালিংক এক বিবৃতিতে বলেছে, লাইসেন্স পাওয়ার পরপরই তারা তাদের গ্রাহকদের জন্য ফোর-জি সেবা চালুর জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

ad