গাজীপুরে বাবা-মেয়ের আত্মহত্যা: প্রধান আসামী আটক

faruk
ad

জাগরণ ডেস্ক: গাজীপুরের শ্রীপুরে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে বাবা-মেয়ের আত্মহত্যার ঘটনায় প্রধান আসামী মো. ফারুককে আটক করেছে র‍্যাব-১।

শুক্রবার (২৬ মে) রাত ৮টার দিকে ঢাকার সাভারের ইসলামনগর এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

শনিবার (২৭ মে) বিকেল ৪টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য নিশ্চিত করেন র‍্যাব-১-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. সারওয়ার বিন কাশেম।

তিনি জানান, হজরত আলীর মেয়েশিশু আয়েশাকে ফারুক চকলেট খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে সাইকেলে করে নিয়ে গিয়ে ‘যৌন নিপীড়ন’ করে।

সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, গত ২৯ এপ্রিল গাজীপুরের বহুল আলোচিত বাবা ও মেয়ের ট্রেনের নিচে পড়ে আত্মহুতি সব গণমাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। এ ঘটনায় কমলাপুর রেলওয়ে থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনায় একটি মামলা করা হয়। এই ঘটনার পর র‍্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে। এরই ধারাবাহিকতায় আসামী ফারুককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার করা স্বীকার করেছে।

র‍্যাব কর্মকর্তা সারওয়ার বিন কাশেম জানান, আত্মহত্যার ঘটনার পর থেকে ফারুক আত্মগোপন করে গাজীপুরের কাপাসিয়ায় গিয়ে লুকান। এরপর ফরিদপুরের আটরশিতে বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে আত্মগোপন করে বেশ কিছুদিন থাকার পর সর্বশেষ সাভারের ইসলামনগর এলাকায় লুকিয়ে থাকেন। র‍্যাব তার অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর সেখান থেকে ফারুককে আটক করে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান র‍্যাব কর্মকর্তা।

তিনি আরও জানান, ফারুকের দাবি সে শিশু আয়েশাকে ধর্ষণ করেননি। ফারুক মেয়েটিকে সাইকেলে করে নিয়ে যাওয়ার সময় শরীরের বিভিন্নস্থানে হাত দিয়ে যৌন নিপীড়ন করে। এতে আয়েশা রেগে গেলে তাকে সাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে চলে যান।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ফারুক জানায়, শিশু আয়েশাকে যৌন নিপীড়ন করার পর সে এবং তার সংঘবব্ধ চক্র আয়েশার পরিবারকে নানাভাবে অত্যাচার ও সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করে। ফারুক ও তার লোকজন আয়েশার বাবা হজরত আলীর একটি গরু চুরি করে বিক্রি করে দেন।

উল্লেখ্য, গত ২৯ এপ্রিল সকালে শ্রীপুর রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় শ্রীপুরের সিটপাড়া গ্রামে দিনমজুর হজরত আলী (৪৫)ও তার পালিত কন্যা আয়েশা আক্তার (৮) ট্রেনের নিচে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

হজরত আলীর স্ত্রী হালিমা বেগমের অভিযোগ, তার মেয়েকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে স্থানীয় বখাটে ফারুক। এলাকার মানুষ টের পেয়ে ওই মেয়েকে রক্ষা করে। এ ঘটনা স্থানীয় ইউপি সদস্য ও থানা পুলিশকে জানিয়ে প্রতিকার না পেয়ে মেয়েকে নিয়ে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন হজরত আলী।

ad