নীলফামারীতে কালবৈশাখী ঝড়ে নিহত ৭

Kalbishakhi storm
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডোমার ও জলঢাকায় কালবৈশাখী ঝড়ে সাতজন নিহত হয়েছেন। এরমধ্যে জলঢাকায় তিন ও ডোমারে চারজন নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১০ মে) রাতে এ ঝড় বয়ে যায়। ঝড়ে রাস্তাঘাটে গাছ ভেঙে পড়ায় বিদ্যুৎ ও যোগযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। জেলার তিন উপজেলায় শত শত হেক্টর রোপা আমন ধান নষ্ট হয়ে গেছে।

নিহতরা হলেন- ডোমারের গোমনাতি ইউনিয়নের গণি মিয়া (৪০), কেতকিবাড়ী ইউনিয়নের আফিজার রহমান (৪০), ভোগদাবড়ী ইউনিয়নের খোদেজা বেগম (৫০) ও জমিরুল ইসলাম (১২)। এছাড়া জলঢাকার ধর্মপাল খুচিমাদা গ্রামের আলমের স্ত্রী সুমাইয়া (৩০) ও ৩ মাস বয়সী মেয়ে মনি এবং পূর্ব শিমুলবাড়ী গ্রামের মমিনুর রহমানের ছেলে আশিকুর রহমান (২২)।

অপরদিকে, শুক্রবার (১১ মে) সকালে ফসল নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ডিমলা উপজেলার নাওপাড়া ইউনিয়নে জোতিন্দ্রনাথ রায় (৬০) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।

জোতিন্দ্রনাথ রায় ৮ বিঘা জমিতে ধানচাষ করেছিলেন। রাতের ঝড়ে তার সব ফসল নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সেটা সহ্য করতে না পেরে সকালে তিনি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান বলে জানিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম লেলিন।

ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সরকারি দপ্তরের পাশাপাশি ইউপি চেয়ারম্যানকে তালিকা তৈরি করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ad