পাবনায় মা-ভাই-খালাকে কুপিয়ে হত্যা করল যুবক

Pabna 3 Murder Photo-01
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: পাবনার বেড়ায় এক যুবকের বিরুদ্ধে তার মা, ছোট ভাই ও আপন খালাকে গলাকেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৪ জুলাই) ভোররাত ৪টার দিকে উপজেলার নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নের সোনাপদ্মা নতুন চারা বটতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বেড়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার আশিষ বিন হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন-সোনাপদ্মা নতুন চারা বটতলা গ্রামের মিঠু হোসেনের স্ত্রী বুলি খাতুন (৪০),ছেলে তুষার হোসেন (১০) ও বুলি খাতুনের আপন বোন নছিমন খাতুন (৪৫)। হত্যাকারী বড় ছেলের নাম তুহিন হোসেন (২২)।

পরিবারের বরাত দিয়ে সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার আশিষ বিন হাসান জানান, বুধবার ভোররাত চারটার দিকে ওই গ্রামের মিঠু হোসেনের ছেলে তুহিন হোসেন ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার মা বুলি, ভাই তুষার হোসেন ও খালা নছিমনকে গলাকেটে ও কুপিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায়। কেন, কি কারণে সে তার পরিবারের তিনজনকে হত্যা করেছে তাৎক্ষণিকভাবে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তুহিন হোসেনের স্ত্রী রুনা খাতুন পুলিশকে জানিয়েছেন, ফজরের আজানের কিছু আগে ঘুম ভেঙে যায় তার শাশুড়ির গোঙানীর শব্দ শুনে। এ সময় তার পাশে স্বামীকে দেখতে পাননি তিনি। দরজা খুলে বাইরে গিয়ে দেখেন বাড়ির উঠোনে রক্তাক্ত অবস্থায় তার শাশুড়ি, ছোট দেবর ও খালা শাশুড়ির লাশ পড়ে আছে। পাশে ধারালো অস্ত্র হাতে দাঁড়িয়ে তার স্বামী। ওই সময় স্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে তুহিন বলে, ‘সব কটারে শেষ করে দিলাম।’ এ দৃশ্য দেখে দৌঁড়ে পাশের বাড়িতে পালিয়ে যান রুনা।

রুনা খাতুন পুলিশকে জানিয়েছেন, দুই মাস আগে তার স্বামী টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হয়। তারপর থেকে তুহিনের মেজাজ খিটখিটে ছিল। তুচ্ছ ঘটনায় মানুষের সাথে ঝগড়া বিবাদে জড়িয়ে পড়তো।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ad