বনানীতে বাস চাপায় পা হারানো রোজিনা আর নেই

Losing leg, Rozina, no more
ad

জাগরণ ডেস্ক: রাজধানীর বনানীতে বিআরটিসির বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে পা হারানো রোজিনা শেষ পর্যন্ত মারা গেছে।

রবিবার (২৯ এপ্রিল) সকাল ৭টা ২০ মিনিটে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোজিনার মৃত্যু হয়। রোজিনা গাজী টেলিভিশনের প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইসতিয়াক রেজার বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতেন।

গত ২০ এপ্রিল রাত সাড়ে ৮টার দিকে বনানীর চেয়ারম্যান বাড়ির সামনে বিআরটিসির বাস (ঢাকা মেট্রো ব ১১-৫৭৩৩) রোজিনা আক্তারকে ধাক্কা দেয়। রোজিনা পড়ে গেলে বাসটি তার ডান পায়ের ওপর দিয়ে চলে যায়। আর এতে তার পা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

রোজিনাকে পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে আসা প্রত্যক্ষদর্শী কাউসার আহমেদ জানান, বনানীর চেয়ারম্যান বাড়ি ফুটওভার ব্রিজের নিচ থেকে ২০ হাত দূরে রাস্তা পারাপারের সময় হঠাৎ রোজিনা রাস্তায় পড়ে যান। এ সময় মহাখালী থেকে উত্তরাগামী বিআরটিসির একটি দোতলা বাস তার ডান পায়ের ওপর দিয়ে চলে যায়। সঙ্গে সঙ্গে হাঁটু থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় পায়ের নিচের অংশ।

হাসপাতালের বেডে শুয়ে থাকা রোজিনা মৃদু কণ্ঠে জানান, সে তার বান্ধবীর সঙ্গে দেখা করতে মহাখালীর আমতলীতে গিয়েছিল। ফেরার সময় চেয়ারম্যান বাড়ির কাছে দাঁড়িয়েছিল। একটি বাস দাঁড়ালে সেটিতে ওঠার জন্য এগিয়ে গেলে সেটি তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে পায়ের ওপর দিয়ে চলে যায়।

দুই দফা অস্ত্রোপচার করে তার ডান পা উরুর গোড়া থেকে ফেলে দিতে বাধ্য হন জাতীয় অর্থপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের (পঙ্গু হাসপাতাল) চিকিৎসকরা।

গত বুধবার দুপুরে রোজিনাকে পঙ্গু হাসপাতাল থেকে ঢামেকে স্থানান্তর করা হয়েছিল। রোজিনা মোটামুটি ভালো ছিলেন বলে ওই সময় জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। পরে তার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি ঘটলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ তার মৃত্যু হয়।

এর আগে গত ৩ এপ্রিল কারওয়ান বাজারে সার্ক ফোয়ারার কাছে দুটি বাসের প্রতিযোগিতায় হাত হারান রাজীব হোসেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৬ এপ্রিল মারা যান তিনি। এছাড়া গত ১০ এপ্রিল ফার্মগেটে বাসচাপায় পা থেঁতলে যায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী রুনি আক্তারের।

আর গত ১৭ এপ্রিল গোপালগঞ্জে ট্রাকের ধাক্কায় বাসের সহকারী হৃদয় শেখের হাত বিচ্ছিন্ন হয়। এরপর থেকে সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

ad