ভাস্কর্য সরিয়ে ধর্মের প্রতি সম্মান করা হয়েছে: আইনমন্ত্রী

law minister anisul haque
ad

জাগরণ ডেস্ক: হেফাজতে ইসলামসহ বিভিন্ন ইসলামী সংগঠনের দাবির মুখে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে ভাস্কর্য অপসারণ করে ইসলামসহ অন্যান্য ধর্মের প্রতি সম্মান করা হয়েছে বলছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেন, ন্যায় বিচারের প্রতীক হিসেবে স্থাপিত ভাস্কর্য সরানোয় বহির্বেশ্বে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়নি। এতে বরং ইসলামসহ অন্যান্য ধর্মের প্রতি সম্মান দেখানো হয়েছে বলে মনে করেন আইনমন্ত্রী।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এটাকে থেমিসের মূর্তি বললেও এটা থেমিসের আসল মূর্তির রূপ না। আমার কাছে মনে হয়, সেটা কোনো মূর্তিই ছিল না। এই মূর্তিটা সরিয়ে বরং ইসলামসহ অন্যান্য ধর্মের প্রতি সন্মান করা হয়েছে।’

‘কারণ, আমরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে এই মূর্তিটা উপস্থাপন করলে আসল মূর্তির ইতিহাস বিকৃত হতো। আমরা কিন্তু বিকৃতি থেকে বের হয়ে আসতে চাই। অতীতে যেসব বিকৃতি হয়েছে সেগুলো থেকে বেরিয়ে এসেছি।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বলব, এর কারণে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়নি।’

তামাকবিরোধী সংগঠন ‘প্রজ্ঞা’ ও ‘আত্মা’র উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে তামাক নিয়ন্ত্রণে গণমাধ্যমে ভূমিকা রাখায় পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিকদের পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

অনেক আলোচনা-সমালোচনার পর গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে সুপ্রিম কোর্টের সামনে স্থাপিত ভাস্কর্যটি সরিয়ে নেওয়া হয়। অনুষ্ঠান শেষে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন আইনমন্ত্রী।

এ সময় আইনমন্ত্রী আরো বলেন, ‘এটা সরানোর ব্যাপারে আমরা আগেই বলেছি, এটার এখতিয়ার প্রধান বিচারপতির। আজকে আমরা দেখেছি, ওনার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কাজ করেছেন।

ad