যেকোনো উপায়ে চাল আমদানির নির্দেশ বাণিজ্যমন্ত্রীর

tofayel ahmad
ad

জাগরণ ডেস্ক: বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ দেশের চলমান চাল সঙ্কট নিরসনে চাল ব্যবসায়ীদের যেকোনো উপায়ে চাল আমদানির নির্দেশ দিয়েছেন।

মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ের খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত চাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকে তিনি এ নির্দেশ দেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী চাল ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, যে যেভাবে পারেন চাল আনেন। আমি এনবিআর ও কাস্টমসকে বলে দিচ্ছি। কেউ বাধা দেবে না। এছাড়া, ভারত থেকে জিটুজি পদ্ধতিতে চাল আমদানি করতে আমি নিজে কথা বলবো।

বৈঠকে ব্যবসায়ীরা বাণিজ্যমন্ত্রীকে বলেন, সঙ্কট কাটাতে চাল আমদানির শুল্ক দেরিতে কমানো হয়েছে। এছাড়া চাল ও ধান সংগ্রহে সরকার যে দাম নির্ধারণ করেছে তা অনেক কম। তখন যদি চালের দাম ৩৪ টাকা নির্ধারণ না করে ৪০ টাকা করা হতো তবে আমরা অনেক চাল দিতে পারতাম।

এদিকে, চালের দাম কমাতে চাল সংরক্ষণ ও পরিবহনে প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কথা জানিয়ে তোফায়েল আহমেদ বলেন, এ মুহূর্তে চটের বস্তায় চাল আমদানির সরকারি বাধ্যবাধকতার সিদ্ধান্ত আগামী তিন মাসের জন্য স্থগিত করা হলো। প্লাস্টিকের বস্তাসহ ব্যবসায়ীরা যে যেভাবে খুশি চাল পরিবহন করতে পারবেন। এতে প্রতি কেজি চালের দাম ২ টাকা কমে যাবে।

মূলত বৈঠকের শুরুতেই চাল ব্যবসায়ীরা চাল আমদানিতে চটের বস্তা ব্যবহারে সরকারি বাধ্যবাধকতার বিষয়টি তুলে ধরেন বলেন, চটের বস্তায় চাল আমদানি করলে প্রতি কেজিতে ১ টাকা খরচ রাড়ে। আর প্লাস্টিকের বস্তায় খরচ হয় মাত্র ১৫/১৬ পয়সা। যদি চটের বস্তা ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা স্থগিত করা হয় তবে আমদানিতে প্রতি কেজি চালের দাম দুই টাকা কমবে।

ব্যবসায়ীদের এমন কথার পরিপ্রেক্ষিতেই বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন।

ad