ভিসিবিহীন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়!

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) উপাচার্য বিদেশ সফরে গিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে আবার যোগদান না করায় উপাচার্যবিহীন হয়ে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। এদিকে উপাচার্যের দায়িত্বহীন এই ভূমিকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট মহলে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়াও শুরু হয়েছে।


জানা যায়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আব্দুল মঈন গত ৩ জুলাই অস্ট্রেলিয়া গমন করেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হুমায়ুন কবিরকে রুটিন উপাচার্যের দায়িত্ব প্রদান করে যান। কিন্তু উপ-উপাচার্যের রুটিন দায়িত্বের মেয়াদ ছিল শনিবার (১৬ জুলাই) পর্যন্ত। এদিকে ১৭ জুলাই উপাচার্য যোগদান না করায় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় এখন উপাচার্য শূন্য হয়ে পড়েছে।


এদিকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে কোন দায়িত্বপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার নেই। তাই রেজিস্ট্রারের সাথে এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা যায়নি।


তবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো. আসাদুজ্জামান বিবার্তাকে বলেন, স্যারদের এভাবে ছুটিতে গেলে আবার জয়েন করার আর দরকার হয় না। ছুটি শেষ হলে এরপর অটোতে যোগদান হয়ে যায়। এগুলো অযথা মানুষে বলছে।


উল্লেখ্য, কর্মস্থল ত্যা‌গের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব শরিফ উদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয় ‘বিনানুমতিতে কর্মস্থল ত্যাগ করা একজন সরকারি/স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার কর্মকর্তার জন্য অত্যন্ত গর্হিত কাজ, যা প্রশাসনিক রীতিতে শাস্তিযোগ্য।’


সরকারি এ প্রজ্ঞাপনের আওতায় স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় এবং এর উপাচার্যও পড়েন। কাজেই সরকারি বিধি অনুযায়ী, কুবি ভিসি কাউকে দায়িত্ব দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে আবার যোগদান না করা স্পষ্টতই সরকারি বিধির লঙ্ঘন। ফলে কুমিল্লা বিশ্ব‌বিদ্যালয় এখন উপাচার্যবিহীন!