রাজশাহীতে সাংবাদিকের ওপর হামলা, আটক ৫

রাজশাহীতে দৈনিক কালের কণ্ঠের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল  সিল্কসিটি নিউজের সম্পাদক রফিকুল ইসলামকে মারধর করেছে থিম ওমর প্লাজার নিরাপত্তা কর্মীরা।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজশাহী নগরীর নিউ মার্কেট সংলগ্ন থিম ওমর প্লাজার সামনে এই ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে রাজশাহীর সাংবাদিক নেতারা বলেন, গত সপ্তায় থিম ওমর প্লাজায় মালিক ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি বেশ কয়েকজন সাংবাদিকের সামনে সাংবাদিক রফিকুল ইসলামকে হত্যা করে গুম করে দেওয়ার হুমকি দেয়। সাংবাদিক নেতারা মনে করছেন, এমপি ফারুক চৌধুরীর হুকুমেই এই হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে তার কর্মচারীরা।

এই হামলার ঘটনার পরে রাজশাহীতে কর্মরত সাংবাদিকরা পাঁচজন হামলাকারীকে থিম ওমর প্লাজার ভেতরে আটকে রাখে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হামলাকারীদের আটক করে শিরোইল পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ওমর প্লাজার সামনে অবস্থান করেছেন সাংবাদিকরা।

হামলাকারীরা হলেন, নগরীর ষষ্ঠীতলা এলাকার সেকেন্দার আলীর ছেলে সাহেদ আলী (২৮), কাটাখালীর মাসকাটাদিঘী এলাকার আলতাফ হোসেনের ছেলে মুন্না (২৭), তেরখাদিয়া এলাকার (ভাড়াটিয়া) মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে আবদুল হাকিম (৪৮), পবার মথুরা এলাকার মতিউর রহমানের ছেলে নাহিদ (২০), বহরমপুর এলাকার গনেষের ছেলে শ্রী সানি (২২) ও আব্দুল হাকিম (৪৮)।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে শিরোইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মাহফুজুর রহমান জানান, সকালে মাছ কেনার জন্য থিম ওমর প্লাজার মূল গেট থেকে একটু দূরে মোটরসাইকেল রাখেন সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম। এ সময় একজন সিকিউরিটি গার্ড এসে সাংবাদিক রফিকুল ইসলামের মোটরসাইকেলের উপরে রাখা হেলমেটটি নিয়ে যায়। এ সময় রফিকুলকে বলেন, 'এখানে আয়। নিয়ে যা তোর হেলমেট।' এক পর্যায়ে এক সিকিউরিটি গার্ড মুন্না এগিয়ে আসে রফিকুলের দিকে। এ সময় সে হেলমেট আনতে গেলে মারধর শুরু করে তারা।

পরে কয়েকজন মাছ ব্যবসায়ী ও পথচারীরা এসে রফিকুলকে উদ্ধার করেন। তবে এরপরও সিকিউরিটি গার্ড সানি, হাকিম ও নাহিদ এসে লাঠি দিয়ে মারধর শুরু করে।

এ বিষয়ে রাজশাহী সংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী শাহেদ বলেন, পরিকল্পিতভাবে হামলা চালানো হয়েছে। এই ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে হামলাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

মন্তব্য লিখুন :