চৌমুহনীর ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারেরর পাশে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডডেশন

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনীতে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে হামলার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ৭টি পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছি বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর মাঝে ১৫ লাখ টাকা তুলে দিয়েছে তারা। এর মধ্যে সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা করে তুলে দেয়া হয় নিহত যতন সাহা ও প্রান্ত দাসের পরিবারকে। এক লাখ করে টাকা দেয়া হয় বাকী পাঁচটি পরিবারকে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) চৌমুহনীর রাধামাধব জিউর মন্দিরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে ক্ষতির পরিমাণ যাচাই করে এ অর্থসহায়তা দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ সহায়তা হস্তান্তর করেন নোয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান।

বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের বোর্ড মেম্বার মো. জামাল উদ্দিন বলেন, আপনি একা নন, পুরো বাংলাদেশ আছে আপনার পাশে- এ বার্তাটিই আমরা পৌঁছে দিতে চেয়েছি। যার যতটুকু ক্ষতি হয়েছে, তার চেয়ে বেশি দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। বিভিন্ন সদস্যের দেয়া তথ্য বিবেচনা করে ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়।

নোয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান বলেন, সরকারের পাশাপাশি বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন যে বড় সহায়তা নিয়ে এগিয়ে এসেছে, তা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করবে। গ্রহীতা পরিবারগুলোর সঙ্গে কথা হয়েছে। এই টাকা কীভাবে খরচ করবে তার দিকনির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ জেলা শাখার সভাপতি বিনয় কিশোর রায়, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মাখন লাল দাস, সহ-সভাপতি তপন চন্দ্র মজুমদারস, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও বিদ্যানন্দের স্বেচ্ছাসেবকরা।