সালমান খানের ৫ বছর কারাদণ্ড

Salman Khan, murder, attempt,
ad

বিনোদন ডেস্ক: কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় সালমান খানকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া বাকি আসামী টাবু, সাইফ আলী খান, সোনালী বেন্দ্রে ও নীলমকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ এপ্রিল) ভারতের যোধপুরের একটি আদালত তাকে দোষী সাব্যস্ত করে এ রায় ঘোষণা করে।

সরকার পক্ষের কৌঁসুলি সর্বোচ্চ সাজার আবেদন জানায়। শেষমেশ পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের সাজা দেন আদালত। সেক্ষেত্রে নিম্ন আদালত থেকে আর জামিন নিতে পারবেন না সালমান। যোধপুর সেন্ট্রাল জেলেই যেতে হবে তাঁকে। অথবা অন্য একটি সম্ভাবনাও দেখা দিচ্ছে। এখনই যদি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে রাজস্থান হাইকোর্টে বা উচ্চ আদালতে রায়ের বিরুদ্ধে আবেদন জানান, তাহলে এই পরিস্থিতি এড়াতে পারেন তিনি।

আইনজীবীরা আগেই বলেছিলেন, সালমানের যদি তিন বছরের কম জেল হয় তাহলে তিনি জামিন পাবেন। আর এর বেশি হলে তাকে যেতে হবে জেলে

জানাগেছে, বন্যপ্রাণ আইনের ৯/৫১ ধারায় দোষী হয়েছেন সালমান। সেখানে তাঁর সর্বোচ্চ ৬ বছরের সাজা হতে পারে, সর্বনিম্ন ১ বছরের।

১৯৯৮ সালে ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ ছবির শুটিং সময় তার বিরুদ্ধে যোধপুরে কৃষ্ণসার হরিণকে হত্যা করার অভিযোগ ওঠে। একই দায়ে পড়েন সইফ আলি খান, টাবু, নীলম-সহ একাধিক তারকা।  বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা বন্যপ্রাণ আইন অনুযায়ী দণ্ডনীয় অপরাধ। বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের মানুষ এই হরিণকে সন্তানস্নেহেই পালন করেন, রক্ষাও করেন।

এই মামলায় বারবার নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন তারকা। যদিও এবার তাকে দোষি সাব্যস্ত করল আদালত। এ হরিণ হত্যার জন্য ভারতের বিখ্যাত এক ডন তাকে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকিও দিয়েছিল।

ad