একসঙ্গে তিন মহাদেশে মুক্তি ‘মিশন এক্সট্রিম’

করোনার কারণে বেশ কয়েকবার পিছিয়ে যাওয়ার পর অবশেষে মুক্তি পেতে যাচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলার সিনেমা ‘মিশন এক্সট্রিম’।

আগামী ৩ ডিসেম্বরে একযোগে সারাদেশে মুক্তি পেতে চলেছে পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলার ‘মিশন এক্সট্রিম’। দুই বাংলা ছাড়াও নিউইয়র্ক,সিডনি,ওয়েলিংটনের প্রেক্ষাগৃহগুলিতে একইসঙ্গে ছবিটি মুক্তি পাবে। যুক্তরাষ্ট্র অস্ট্রেলিয়া নিউজিল্যান্ড ছাড়াও আরো ১১টি দেশে ছবিটি মুক্তি পাবে।

 এই ছবিটির মধ্য দিয়েই করোনা পরবর্তী পৃথিবী কে স্বাগত জানানো হবে। এই প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সহ বিশ্বের তিনটি মহাদেশে একই দিনে মুক্তি পেতে চলেছে সে দেশের কোন ছবি। এ খবরে প্রবাসী বাংলাদেশিরা এবং সারা বিশ্বের বাঙ্গালীরা খুবই আনন্দিত।


বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ‘মিশন এক্সট্রিম’র অন্যতম পরিচালক, প্রযোজক এবং লেখক সানী সানোয়ার। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির ক্রমাগত উন্নতি ঘটায় ‘মিশন এক্সট্রিম’ মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলার সিনেমাটি সানী সানোয়ারের সঙ্গে যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন ফয়সাল আহমেদ। এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে রয়েছেন অভিনেতা আরেফিন শুভ। এছাড়াও ‘ঢাকা অ্যাটাক’খ্যাত তাসকিন রহমান, জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী, সাদিয়া নাবিলা ও সুমিত সেনগুপ্ত রয়েছেন।  

বিগ বাজেটের ‘মিশন এক্সট্রিম’র জন্য টানা ৯ মাসের হাড়ভাঙা খাটুনি করে বডি ট্রান্সফরমেশন করেছেন আরিফিন শুভ। সিক্স প্যাকের সুঠামদেহে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন দেশের সকল সিনেমাপ্রেমী দর্শকদের।  


‘মিশন এক্সট্রিম’ মুক্তির ঘোষণায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী এই অভিনেতা বলেন, ‘মিশন এক্সট্রিম’র জন্য নিজেকে ফিট করতে যে পরিশ্রম করেছি, সেটা কখনো ভোলার মতো নয়। 

দীর্ঘ ট্রেনিংয়ে লিগামেন্ট পায়ের স্থানচ্যুত হয়েছিল, ছিঁড়েছিল টিস্যুও। সে আঘাতে এখনো কাতরাতে হয়। এসব কষ্ট ভুলে যাবো, যখন ‘মিশন এক্সট্রিম’ দেখে দর্শকদের ভালো লাগবে। সিনেমাটি অবশেষে মুক্তি পেতে যাচ্ছে, এটা খুবই আনন্দের।


কপ ক্রিয়েশনের ব্যানারে নির্মিত সিনেমাটির অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে রয়েছেন- রাইসুল ইসলাম আসাদ, ফজলুর রহমান বাবু, শতাব্দী ওয়াদুদ, মাজনুন মিজান, ইরেশ জাকের, মনোজ প্রামাণিক, আরেফ সৈয়দ, সুদীপ বিশ্বাস দীপ, রাশেদ মামুন অপু, এহসানুল রহমান, দীপু ইমামসহ অনেকে।


‘মিশন এক্সট্রিম’ সিনেমাটি পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট তথা ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ‘সিটিটিসি’র কিছু শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে নির্মিত। গল্প ও চিত্রনাট্য লিখেছেন পুলিশ সুপার সানী সানোয়ার নিজেই।

সিনেমাটির সহযোগী প্রযোজক হিসেবে রয়েছে মাইম মাল্টিমিডিয়া ও ঢাকা ডিটেকটিভ ক্লাব।


এর আগে পর পর দুই বছর দুই ঈদে ‘মিশন এক্সট্রিম’ মুক্তির ঘোষণা দেওয়া হলেও করোনার কারণে তা আর সম্ভব হয়নি। অবশেষে ৩ ডিসেম্বরে একযোগে সারাদেশে মুক্তি পেতে চলেছে ‘মিশন এক্সট্রিম’।