‘ধৈর্যের বাধ ভেঙে গেলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না’

Jagoran- Patience, embankment, home minister
ad

জাগরণ ডেস্ক: নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সড়ক থেকে তুলতে এক সপ্তাহ পর কঠোর হওয়ার ঘোষণা দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গেলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। আমাদেরও ধৈর্যের সীমা আছে, সীমা অতিক্রম করলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রবিবার (৫ আগস্ট) রাজধানীর জিরো পয়েন্টে ট্রাফিক সপ্তাহ উদ্বোধন উপলক্ষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ছাত্র আন্দোলন নিয়ে চলমান পরিস্থিতিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যথেষ্ট ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে। এর মানে এই নয়, এ বিষয়কে কেন্দ্র করে অরাজকতা চলতে থাকবে আর পুলিশ চুপ করে বসে দৃশ্য দেখবে। পুলিশ আইন প্রয়োগে কঠোর হবে। তবে ব্যবহারে নমনীয় থাকবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, একজন দায়িত্বশীল নেতা ফোন দিয়ে কুমিল্লা থেকে ঢাকায় লোক আনছেন। একজনকে দায়িত্বশীল নেতা তিনি ঢাকায় নামতে বলেন। তার উদ্দেশ্য ভালো ছিল না। ব্যাগ নিয়ে ঢাকা আসছেন এমন অনেকের ব্যাগে আমরা পাথর পেয়েছি। পুলিশ অনেককে পাথর বোঝাই স্কুলব্যাগসহ আটক করেছে। হাজার হাজার স্কুল ড্রেস ও আইডি কার্ড তৈরি হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমজুড়ে শুধু মিথ্যাচার আর গুজব। একজন অভিনেত্রী গতকাল কিভাবে কথাগুলো বললেন, কিভাবে অভিনয়টা করলেন আপনারা তা দেখেছেন। একটি মহল কোমলমতি শিক্ষার্থীদের দাবি ভিন্নখাতে নিয়ে যেতে এই অপতৎপরতা চালানো হচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের দাবি সম্পর্কে জানতে চেয়েছি। তাদের ৯ দফার সবগুলোই পূরণ করা হয়েছে। তবুও কেন তারা রাস্তা ছাড়ছে না?

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আমি আগেও বলেছি। শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলনকে অন্য দিকে নেওয়ার প্রচেষ্টা হচ্ছে। আপনারা দেখেছেন হাজার হাজার আইডি কার্ড গলায় ঝুলানো হয়েছে। একটাও স্কুলের ছাত্র নয়, সব প্রাপ্তবয়ষ্ক।

তিনি আরও বলেন, ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আন্দোলনের যে ছবি দেয়া হয়েছে তার অনেকগুলোই পাকিস্তানের ছবি। এর মধ্যে ২০১২-১৩ সালের ছবিও আছে। পাকিস্তান-দিল্লির বিভিন্ন ঘটনা এ দেশের ঘটনা বলে প্রচার করা হচ্ছে। আমাদের নেতাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন আপত্তিকর পোস্ট ছড়ানো হচ্ছে। তারা যদি এসব অপতৎপরতা পরিহার না করে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, এ ট্র্যাফিক সপ্তাহের মাধ্যমে আমি সবাইকে রাস্তায় চলাচলে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। রাস্তায় চালক, যাত্রী, পথচারী সবাইকেই আইন মেনে চলতে হবে। তা না হলে সড়ক দুর্ঘটনা কোনোভাবেই কমানো যাবে না।

ad