মিম-রাজিবের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা দিতেই হবে জাবালে নূরকে

jagoran- Two buses, rivalries, 2 students, deaths,
ad

জাগরণ ডেস্ক: রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএস বাসস্ট্যান্ডে জাবালে নূর পরিবহনের দুই বাসের চালকের রেষারেষিতে এক বাসের চাপায় মিম ও রাজিব নামের দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় তাদের পরিবারকে পাঁচ লাখ টাকা করে মোট ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ জাবালে নূর পরিবহন কর্তৃপক্ষকে দিতেই হবে।

বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) হাইকোর্টের দেয়া ক্ষতিপূরণের ওই আদেশ স্থগিত চেয়ে আবেদন করে জাবালে নূর পরিবহন কর্তৃপক্ষ। শুনানি শেষে আপিল বিভাগের বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর চেম্বার জজ আদালত ওই আদেশের উপর স্থগিতাদেশ দেননি। ফলে ক্ষতিপূরণের টাকা পরিশোধ করতেই হবে।

এর আগে গত ৩০ জুলাই এক সপ্তাহের মধ্যে ওই দুই শিক্ষার্থীর পরিবারকে তাৎক্ষণিক পাঁচ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে আহতদের চিকিৎসার ব্যয়ভার বহনেরও আদেশ দেন।

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএ বাসস্ট্যান্ডে দুই বাসের রেষারেষিতে শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মিম ও বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আব্দুল করিম রাজিব ঘটনাস্থলেই নিহত হন। আহত হন কলেজের আর ১২ শিক্ষার্থী। আহতদের মধ্যে আটজন চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরলেও এখনো হাসপাতালে ভর্তি আছেন চারজন।

ঘটনার দিনই নিহত দিয়া খানম মিমের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন। মামলা নং ৩৩ (৭) ১৮।

এ ঘটনার পর নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভে নামে শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থীরা। পরে তাদের সাথে যোগ দেয় রাজধানীর বিভিন্ন কলেজ-স্কুলের শিক্ষার্থী। একসময় তারা পুরো ঢাকায় অবরোধ দেয়। পরে তা ছড়িয়ে পড়ে দেশব্যাপী। এ সময় শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে ৯ দফা দাবি তুলে। পরে সরকার তা মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিলে ৬ আগস্ট তারা ধর্মঘট তুলে নেয়।

ad