হুমকির মুখে রয়েছে বাংলাদেশঃ যুক্তরাষ্ট্র

ad

জাগরণ ডেস্কঃ বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠীর হুমকির মুখে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র মার্ক টোনার। সাম্প্রতিক  জুলহাজ মান্নানসহ  কয়েকটি হত্যাকাণ্ড এবং তা নিয়ে আইএস ও আল কায়দার দায় স্বীকারের বার্তার প্রেক্ষাপটে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এই মন্তব্য করেন।

শুক্রবার ওয়াশিংটনে এক নিয়মিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে আইএস ও ‘তালেবানের দায় স্বীকার’র প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের পরিস্থিতি আসলে কেমন, তা জানতে চাওয়া হয় টোনারের কাছে।

জবাবে মার্ক টোনার বলেন, “দায় স্বীকারের অনেক বার্তাই আসছে। তবে এতে বিশ্বাস কিংবা অবিশ্বাস, কোনটিই করার কারন এখনও নেই। তবে এটা স্পষ্ট যে সেখানে (বাংলাদেশে) হুমকি আছে।”

এ সময় বাংলাদেশ পরিস্থিতি বেশ জটিল উল্লেখ করে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এই মুখপাত্র বলেন, এসব হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু তদন্ত করে খুনিদের আইনের আওতায় আনতে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ সরকারকে আহ্বান জানিয়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশে যারা হুমকির মুখে রয়েছেন, তাদের নিরাপত্তা দ্বিগুণ করার অনুরোধ জানিয়েছে ওয়াশিংটন।

এর একদিন আগে সমকামী অধিকারকর্মী ও ইউএসএইড কর্মকর্তা জুলহাজ হত্যাকাণ্ডে উদ্বেগ জানিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি।

গত ২৫ এপ্রিল রাজধানীর কলাবাগানে বাড়িতে ঢুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয় জুলহাজ ও তার বন্ধু মাহবুব রাব্বী তনয়কে। ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের সাবেক প্রটোকল অ্যাসিস্টেন্ট জুলহাজ সমকামী অধিকারকর্মী ছিলেন। তার বন্ধু তনয় ছিলেন নাট্যকর্মী।

তার দুদিন আগে রাজশাহীতে কুপিয়ে হত্যা করা হয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও সংস্কৃতিকর্মী এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিকীকে। তার আগে এমাসেই ঢাকায় খুন করা হয় অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট নাজিমুদ্দিন সামাদকে।

এসব হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে আল কায়দা ও আইএসের নামে বার্তা এলেও তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে বাংলাদেশ সরকারের। তাদের ধারণা, সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে একটি গোষ্ঠী পরিকল্পিতভাবে স্থানীয় জঙ্গিদের সহায়তায় এসব হত্যাকান্ড চালাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোপূর্বে বলেছেন, ‘বাংলাদেশে আইএসের অস্তিত্ব আছে বলে প্রমাণের একটি অপচেষ্টা চলছে।’

ad