নাজিব রাজাকের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

Najib Razak, countryside, ban,
ad

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক ও তার স্ত্রীর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। মাত্র একদিন আগেই অবকাশ কাটাতে স্ত্রীকে নিয়ে দেশের বাইরে যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন নাজিব।

এক বিবৃতিতে দেশটির অভিবাসন বিভাগ জানিয়েছে, নাজিব রাজাক ও তার স্ত্রী রোসমাহ মানসুরকে দেশত্যাগে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

মালয়েশিয়ায় ১৪তম সাধারণ নির্বাচনে অবিস্মরণীয় জয় পেয়ে গত বৃহস্পতিবার মাহাথির মোহাম্মদের শপথ নেয়ার দুদিনের মাথায় এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলো।

এক টুইটে নাজিব জানিয়েছেন, তাকে অভিবাসন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা বিদেশ ভ্রমণে যেতে পারবেন না। কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তের কোনো কারণ জানাননি তিনি। তবে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত মেনে নেবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

নাজিবের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রীয় বিনিয়োগ তহবিল ওয়ানএমডিবি থেকে ৭০ কোটি মার্কিন ডলার আত্মসাতের অভিযোগ আছে।

রাজধানী কুয়ালালামপুরকে বিশ্ব অর্থনীতির কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করার পাশাপাশি কৌশলগত বিনিয়োগের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতি গতিশীল করার পরিকল্পনায় ২০০৯ সালে এই ওয়ানএমডিবি তহবিল গঠন করা হয়েছিল। তহবিলে তিনশ কোটি ডলারের বেশি অর্থ ছিল।

ওই তহবিলের অর্থ আত্মসাতের মাধ্যমে মালয়েশীয়দের প্রতারিত করা হচ্ছে, ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষ তাদের কাছে এ সংক্রান্ত তথ্য প্রমাণ থাকার কথা জানিয়ে অন্তত একশ কোটি ডলারের সম্পদ জব্দ করার উদ্যোগ নেয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল কোর্টে এ সংক্রান্ত একটি মামলাও হয়। মার্কিন বিচার বিভাগের দায়ের করা ওই মামলার কাগজপত্রে মালয়েশিয়ার সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের নাম উল্লেখ না করে ‘মালয়েশিয়া অফিসিয়াল ওয়ান’ বলা হয়।

১৯৮১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত টানা ২২ বছর ক্ষমতায় থাকলেও এবার বিরোধী দল থেকে নির্বাচন করে মাহাথির মোহাম্মদ। স্বেচ্ছা অবসর ভেঙে সাবেক সহকর্মী নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় তার বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছিলেন তিনি। ক্ষমতাসীন নিজ দল বারিসান ন্যাসিওনাল ছেড়ে যোগ দেন পাকাতান হারাপান জোটে।

নাজিব শুরু থেকেই তার বিরুদ্ধে আনা এ অভিযোগ অস্বীকার করছেন। ক্ষমতায় থাকাকালে প্রধানমন্ত্রীকে এ অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছিল মালয়েশিয়ার বিচার বিভাগও।

বিরোধীদের অভিযোগ, ক্ষমতার অপব্যবহার করে মালয়েশিয়ার তদন্ত থেকে অব্যাহতি নিয়েছিলেন নাজিব। ওয়ানএমডিবি তহবিল থেকে নাজিবের অর্থ আত্মসাতের নতুন তদন্তও চেয়েছে তারা।

এদিকে, মালয়েশিয়ার সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী এবং সদ্য নির্বাচিত পাকাতান হারাপান জোটের অন্যতম নেতা আনোয়ার ইব্রাহিমকে সাধারণ ক্ষমা করার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির নব নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পরদিন শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে মাহাথির বলেন, আনোয়ার ইব্রাহিমকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমা ঘোষণার প্রাথমিক ইঙ্গিত দিয়েছেন রাজা। শুধু তাই নয়, ক্ষমা ঘোষণার পরপরই তিনি কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে রাজনীতিতে অংশ নিতে পারবেন।

মাহাথির বলেন, প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই আনোয়ার ইব্রাহিমের কাছে সরকার প্রধানের ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন তিনি। দুর্নীতির দায়ে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বারিসান ন্যাশনালের এই নেতাকে মুক্ত করার অঙ্গীকার নিয়েই, এবারের নির্বাচনে বিরোধীজোটের প্রার্থী হয়ে নাজিব রাজাকের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন মাহাথির।

ad