পঞ্চায়েত ভোট: রণক্ষেত্র পশ্চিমবঙ্গ, নিহত ৫

India vote
ad

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পঞ্চায়েত ভোটকে কেন্দ্র করে ভারতের পুরো পশ্চিমবঙ্গ রণক্ষেত্রে রূপ নিয়েছে। রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে বোমাবাজি, হামলা পাল্টা হামলায় অন্তত পাঁচজন নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে আরও বহু মানুষ।

সোমবার (১৪ মে) সকাল থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয় এ নির্বাচনের। এরপরই শুরু হয় সহিংসতা। কেন্দ্র দখল করতে বিজেপি, কংগ্রেস, তৃণমূল ও বাম সংগঠনগুলো বিভিন্ন স্থানে চালায় সহিংসতা।

ভোটকে কেন্দ্র করে সবচেয়ে বেশি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার জোংড়া এলাকা। এখানে প্রকাশ্যে চলে বিজেপি ও তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মাঝে হামলা পাল্টা হামলা। এ এলাকায় একজন নিহত ও অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছে।

কুলতলির মেরিগঞ্জে গুলি করে খুন করা হয়েছে আরিফ আলি গাজি নামে এক ব্যক্তিকে। সে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী ছিল। ঘটনার জেরে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা রয়েছে। সেখানে এখনো গোলাগুলি চলছে।

আমডাঙায় বোমার আঘাতে এক সিপিএম কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। এই এলাকায় আহত হয়েছে তিনজন।

শান্তিপুরে বুথ দখল করতে গিয়ে স্থানীয়দের গণপিটুনিতে সঞ্জীব প্রামাণিক নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। সে তৃণমূল কর্মী ছিল। বাসিন্দাদের অভিযোগ, বুথ দখল করতে গেলে বিরোধী দলগুলি একজোট হয়ে তিনজনকে গণপিটুনি দেয়। এতে নিহত হয় সঞ্জীব।

জলপাইগুড়ির শিকারপুর গ্রাম ব্যালটে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ব্যালট বাক্সও লুট করে নিয়ে যাওয়া হয়। পাথরঘাটা গ্রাম পঞ্চায়েতের কাশীনাথপুরে ১৯২ নম্বর বুথে সকাল থেকেই ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। ওই কেন্দ্রে মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের বিরুদ্ধে এক বিজেপি এজেন্টকে চড় মারা অভিযোগ ওঠে।

মুর্শিদাবাদের বেলডাঙায় বোমা, গুলিতে বিজেপি কর্মী খুন। আহত আরও চারজন।

বাগদার আমডোবা গ্রামে মাঝরাতে বুথে ঢুকে ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ, গ্রামবাসীরা বাধা দিলে বোমা হামলায়। নয় জনকে ধরে গণপিটুনি, আহত ৭।

কোচবিহারের দিনহাটায় রাতভর গুলি-বোমার লড়াই। আহত ৫।

হাতিয়ার মরিচের গুঁড়া নিয়ে মহিলাদের হামলায় আহত ২। পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথিতে ২ মহিলাসহ ৫ জনকে বিজেপি কর্মী গ্রেপ্তার।

ad