পাকিস্তানে নেমে বিমানবন্দরেই গ্রেপ্তার নওয়াজ-মরিয়ম

ad

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও সে দেশের মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএলএন) এর নেতা নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ লন্ডন থেকে দেশে ফিরেই গ্রেপ্তার হয়েছেন।

শুক্রবার (১৩ জুলাই) স্থানীয় সময় রাত ৮টা ৫০ মিনিটে লাহোর বিমানবন্দরে নামার পর তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এনএবির বেশকিছু সদস্য বিমানের ভেতর প্রবেশ করে অন্য যাত্রীদের বের হয়ে যেতে বলেন। এ সময় তারা নওয়াজ ও মরিয়মের পাসপোর্ট জব্দ করেন।

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছিল, হয়তো একটি ছোট্ট বিমান বা হেলিকপ্টারে করে তাদের ইসলামাবাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হবে। পরে সেখান থেকে তাদের নেয়া হবে আদিয়ালা কারাগারে।

তবে নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সমস্যা দেখা দেওয়ার আশঙ্কায় নওয়াজ শরিফকে বহনকারী বিমানটিকে পাকিস্তান সরকার সরাসরি ইসলামাবাদে পাঠিয়ে দিতে চেয়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত বিমানটি লাহোরেই অবতরণ করেছে। লাহোরে নওয়াজের সমর্থকদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে সতর্ক অবস্থান নিয়েছে নিরাপত্তাবাহিনী। কিন্তু নওয়াজকে গ্রেফতার করার ঘটনায় লাহোরে প্রবল বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।

লন্ডনে চারটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট কেনাকে কেন্দ্র করে নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়। ৬ জুলাই ওই মামলায় পাকিস্তানের দুর্নীতি দমন আদালত নওয়াজকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে। আর অবৈধ কর্মকাণ্ডে উৎসাহ দেয়ার অভিযোগে নওয়াজ কন্যা মরিয়মকে দেয়া হয়েছে সাত বছরের কারাদণ্ড।

স্ত্রী কুলসুমের ক্যান্সারের চিকিৎসা করাতে এতোদিন লন্ডনে ছিল নওয়াজ পরিবার। রায় ঘোষণার পর পাকিস্তানে ফেরার ঘোষণা দিয়েছিলেন নওয়াজ।

গত বুধবার লন্ডনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নওয়াজ শরিফ বলেন, একসময় আমরা বলতাম রাষ্ট্রের ভেতর আরেক রাষ্ট্র, আর এখন দাঁড়িয়েছে রাষ্ট্রের ওপর আরেক রাষ্ট্র। আমার সামনে কারাগারের গারদ দেখছি, তা সত্ত্বেও আমি পাকিস্তানে যাবো।

আদালত তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজকে আজীবনের জন্য রাজনীতিতে অযোগ্য ঘোষণা করায় তিনি নির্বাচনের অংশ নিতে পারবেন না। আগামী ২৫ জুলাই পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচন।

নওয়াজ শরীফ দেশে ফেরায় দেশটির রাজনীতিতে নতুন উত্তাপ শুরু হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, সাবেক ক্রিকেটার ও তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রধান ইমরান খানকে জয়ী করতে কলকাঠি নাড়ছে দেশটির সেনাবাহিনী। আর তারই অংশ হিসেবে আদালতকে ব্যবহার করছে সেনা বাহিনীর উর্ধতন মহল। নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়েকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে এরইমধ্যে নাকি তাদের বিরুদ্ধে রায়ও দেয়া হয়েছে।

ad