প্যারিসে মে দিবসে সহিংসতা, আটক ২০০

Paris, May Day, Violence, Detained 200,
ad

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে মে দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক শোভাযাত্রায় হঠাৎ সহিংসতাকারীরা রাস্তায় পাশে থাকা গাড়ি ও দোকানে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস, টিয়ারসেল, স্প্রে ও জলকামান ব্যবহার করে। এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে প্রায় ২০০ জন মুখোশ পরা সহিংসতাকারীকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১ মে) স্থানীয় সময় দুপুরে দেশটির বামপন্থী নৈরাজ্যবাদী দল ব্ল্যাক ব্লকসের নেতৃত্বে এই সহিংসতা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সহিংসতায় অংশ নেওয়াদের প্রায় সবাই কালো জ্যাকেট পরা ছিল বলে এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। তারা ‘প্যারিস জেগে ওঠো’, ‘পুলিশকে সবাই ঘৃণা করে’ বলে স্লোগান দিতে থাকে।

প্রায় ২০ থেকে ৫৫ হাজার মানুষের শান্তিপূর্ণ শোভাযাত্রাটি হঠাৎই সহিংসতায় রূপ নিয়েছিল। প্রায় ১২শ’ মানুষ কাঁদানে গ্যাস নিরোধক মুখোশ ও মাথায় হুডি পরে শোভাযাত্রাটিতে অংশ নেয়। হঠাৎই তারা সহিংস হয়ে ওঠে। সে সময় তারা বিভিন্ন দোকান ও বাড়িতে হামলা চালিয়ে লুট করে।

মুখোশ পরে বিক্ষোভে অংশ নেয়ার সমালোচনা করেছেন ফ্রান্স সরকারের মুখপাত্র বেঞ্জামিন গ্রেভাক্স। বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বিশ্বাস আন্তরিক হলে তারা মুখোশ ছাড়াই বিক্ষোভে অংশ নিতো। যারা মুখ ঢেকে অংশ নিয়েছেন তারা গণতন্ত্রের শত্রু।

বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ায় থাকা ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ এই সংঘর্ষের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে লিখেছেন, আজকের যে মে দিবসের মিছিলে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে, আমি খুব দৃঢ়ভাবে এর নিন্দা জানাই। অপরাধীদের শনাক্ত করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে। আর এ ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ম্যাক্রোঁর পুর্নগঠন পরিকল্পনা নিয়ে ফ্রান্সে সম্প্রতি ফ্রান্সে ব্যাপক অসন্তোষ দেখা যাচ্ছে। তিনমাস ধরে দেশব্যাপী ধর্মঘট করছেন রেল শ্রমিকরা। গত মার্চে তাদের সঙ্গে যোগ দেয় কয়েক হাজার শিক্ষক, নার্সসহ অন্য শ্রমিকেরা। তবে নিজের পরিকল্পনা এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকার কথা জানিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট।

ad