ভারতে ধূলিঝড়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১২৫

India, dust storm, dead, 125,
ad

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের উত্তর প্রদেশ ও রাজস্থানে ধূলিঝড় ও বজ্রবৃষ্টিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১২৫ জনে দাঁড়িয়েছে। আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাসে আরও ঝড় হতে পারে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

বুধবার (২ মে) রাতের ওই প্রাকৃতিক দুর্যোগে ওই রাজ্য দুটির অনেক গ্রামে গাছ উপড়ে পড়েছে, বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে, গবাদি পশু মারা গেছে ও ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে হতাহতের ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার (৪ মে) ভারতের আবহাওয়া বিভাগের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, সপ্তাহান্তে বিস্তৃত আকারে ঝড় হতে পারে।

এনডিটিভি জানায়, উত্তর প্রদেশের পশ্চিমাংশে বজ্রবৃষ্টিতে অন্তত ৭৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে শুধু আগ্রা জেলাতেই ৪৩ জন প্রাণ হারিয়েছে। নিহতদের বেশির ভাগই বাড়িতে ঘুমিয়ে ছিলেন। এ সময় ধূলিঝড় ও বজ্রপাতের বাড়ি ধসে তাদের মৃত্যু হয়।

ভারতের বিমানবাহিনীর খেরিয়া ঘাঁটির আবহাওয়া বিভাগের তথ্যানুসারে, বুধবার রাত ৮টা ৪৫ মিনিট থেকে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত উত্তর প্রদেশের আগ্রায় ৪৮.২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হযেছে। এ সময় ঘণ্টায় ১২৬ কিলোমিটার বেগে ঝড় বয়ে যায়।

উত্তর প্রদেশের ত্রাণ কমিশনার কার্যালয়ের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, গত ২০ বছরে এত মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। এই সংখ্যা আরও বাড়বে বলেও আশঙ্কা করছেন কর্মকর্তারা। লোকজনকে সতর্ক থাকতে বলেছে রাজ্য ত্রাণ কমিশনারের কার্যালয়।

রাজস্থানের দুর্যোগ ব্যবস্থাপণা ও ত্রাণ সচিব হেমন্ত গেরা বিবিসিকে বলেন, গত ২০ বছর ধরে আমি এখানে কাজ করছি এবং এটা আমার দেখা সবচেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি। গত ১১ এপ্রিল বড় ধরণের ধূলিঝড় হয় এবং ১৯ জন প্রাণ হারায়। কিন্তু এবার রাতে ঝড় শুরু হওয়ায় বেশি প্রাণহানি হয়েছে। লোকজন নিজেদের ঘরে ঘুমিয়ে ছিল এবং ঝড়ে বাড়িঘর ধসে লোকজন তার নিচে চাপা পড়ে।

উল্লেখ্য, গত বুধবার বিকালে দিল্লিতে ধূলিঝড় ও ভারি বর্ষণ শুরু হয়। বিকাল পৌনে ৫টা নাগাদ প্রায় ৫৯ কিলোমিটার বেগে ঝড় হয়। তবে কিছুক্ষণের জন্য এই ঝড় হয়েছিল। ঝড়ের কারণে ১৫টি বিমান বাতিল করা হয়। এরমধ্যে আন্তর্জাতিক বিমানও রয়েছে।

বুধবার রাজস্থানের অনেক জায়গায় তাপমাত্রা ছিল বেশ বেশি। কোটার তাপমাত্রা ছিল ৪৫.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাপমাত্রা বেশি থাকার কারণে আবহাওয়া দপ্তর আগেই ধূলিঝড়ের সতর্কবার্তা দিয়েছিল। সেই সঙ্গে হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনার কথাও জানিয়েছিল।

ad