মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নিধনের ঘটনা ঘটেনি: সুচি

Myanmar, Rohingya, Suu Kyi,
ad

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় পরামর্শক অং সান সুচি বলেছেন, তার দেশে কোনো রোহিঙ্গা সংখ্যালঘু নিধনের ঘটনা ঘটেনি। তবে রাখাইন থেকে মুসলমানদের পালিয়ে বাংলাদেশে যাওয়ার খবরে সরকার উদ্বিগ্ন। সব ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষকে রক্ষা করায় কাজ করে যাবে মিয়ানমার। আমরা শান্তি চাই, ঐক্য চাই, যুদ্ধ চাই না।

মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) জাতির উদ্দেশে দেয়া এক ভাষণে সুচি এসব কথা বলেন। তার ভাষণ টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচি বলেন, যেসব শরণার্থী বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশে গিয়েছে তাদের ফিরিয়ে নিতে প্রস্তুত মিয়ানমার। আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নে তার সরকার কাজ করবে। পরিস্থিতি দেখার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে রাখাইন পরিদর্শনে যাওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। এ ব্যাপারে সব ধরনের সহযোগীতার আশ্বাস দিচ্ছি।

তিনি বলেন, রাখাইন রাজ্য ছেড়ে রোহিঙ্গারা কেন বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে তাও খুঁজে বের করা হবে। আমরা শান্তির প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা সব মানুষের দুর্ভোগ গভীরভাবে অনুভব করি। রাখাইনে শান্তি, স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধারে কাজ করছি। রাখাইনে বাস্তুচ্যুতদের সহায়তা দেয়া হচ্ছে। আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষণের ভয় করি না। কারো ঘাড়ে দায় চাপানো বা দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়া মিয়ানমার সরকারের ইচ্ছা নয়।

সুচি বলেন, বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা মুসলিমদের সত্যাসত্য নির্ধারণের প্রক্রিয়া যেকোনো সময় শুরুর ব্যাপারে মিয়ানমার প্রস্তুত। যারা হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে ও মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে তাদের শাস্তির আওতায় আনা হবে। অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ আছে। তাদের সব কথাই শুনতে হবে। কোনো ব্যবস্থা নেয়ার আগে অভিযোগগুলো যে তথ্য-প্রমাণনির্ভর, তা নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, মিয়ানমার একটি নবীন ও ভঙ্গুর দেশ। আমরা অনেক সমস্যা মোকাবেলা করছি। সব সমস্যাই মোকাবেলা করতে হবে। কিছু সমস্যা নিয়ে পড়ে থাকলে হবে না।

ad