লেবুর সাথে মধু মিশিয়ে খাওয়ার উপকারিতা

সকালে লেবু ও মধুর মিশ্রণ খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী-এ কথা হয়তো প্রায়ই শুনে থাকবেন। আসলেও তাই। লেবু ও মধুর মধ্যে রয়েছে নিরাময়কারী চমৎকার কিছু উপাদান। আর এটি প্রস্তুত করতে খুব বেশি ঝামেলাও পোহাতে হয় না।

নিয়মিত মধু ও লেবুর পানি পান করলে নানা ভাবে উপকৃত হওয়া যায়। আজ আমরা মধুর সাথে লেবু মিশিয়ে পানি খাওয়ার উপকারিতা জানবো।

ওজন কমাবে

নিয়মিত রোজ সকালে খালিপেটে মধু ও লেবুর এক গ্লাস শরবত খেলে ওজন কমতে বাধ্য। টানা ১ মাস নিয়মিত মধু ও লেবুর শরবত খানদেখবেন আপনার ওজন অনেকটাই কমে গেছে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

এই পানীয়টি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। ঠান্ডা কাশির সময় এই পানীয়টি পান করতে পারেন।

ব্রণ কমাতে সাহায্য করে

প্রতিদিন সকালে লেবু ও মধুর মিশ্রণ পান ব্রণ কমাতে সাহায্য করে। দুই থেকে তিন সপ্তাহ এটি পান করলে ত্বক অনেক পরিষ্কার হয়।

শরীর পরিশোষিত করে

লেবু ও মধুর মধ্যে রয়েছে শক্তিশালী পরিশোষধীকরণ উপাদান। প্রতিদিন সকালে এটি পান শরীরের বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে কাজ করে।

বিশেষ কয়েকটি উপকারিতা

মধু ও লেবুর মধ্যে থাকা ভিটামিন আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। তাছাড়া এতে থাকা আয়োডিন ও জিঙ্ক শরীরের খারাপ কোলেস্টরেল কমিয়ে ভালো কোলেস্টরেল বাড়িয়ে দেয়।

সর্দি কাশি থেকে দূর রাখে মধু। ফলে রোজ সকালে মধু ও লেবুর জল পান করলে ঠাণ্ডা লাগার থেকে বাঁচা যায়। মধু শরীর গরম রাখে ফলে সহজে রোগ হবার সম্ভাবনা কম থাকে।

যাদের ঠোঁট ফাটে সব সময় তারা মধু ও লেবুর রস ঠোঁটে লাগাতে পারেন। ঠোঁট ফাটা বন্ধ হয়ে যাবে। মসৃণ থাকবে ঠোঁট সব সময়।

মধুতে থাকা গ্লুকোজ আমাদের শরীরের ক্লান্তি দূর করতে সহায়তা করে। নিয়মিত সকালে মধু ও লেবুর জল পান করলে সারাদিনের ক্লান্তি কম হয়। সাথে আমাদের দেহের পেশীর ক্লান্তি দূর হয়ে এনারজেটিক থাকা যায়।

কীভাবে তৈরি করবেন মধু-লেবুর পানীয়

এক কাপ পানিকে গরম করুন। এরপর পানি চুলা থেকে নামিয়ে হালকা গরম হয়ে এলে এতে এক চা চামচ মধু এবং দুই চা চামচ লেবুর রস দিন। এর পর মিশ্রণটি পান করুন।

মন্তব্য লিখুন :