হাঁটু ব্যথায় কার্যকরী ৩ মশলা

হাঁটু মানুষের শরীরের সমস্ত ওজন বহন করে এবং আমাদের দাঁড়াতে, হাঁটতে, দৌড়াতে সাহায্য করে। হাঁটু মূলত একটি জটিল অস্থিসন্ধি, যা ফিমার, প্যাটেলা এবং টিবিয়া নামক ৩টি হাঁড়ের সমন্বয়ে গঠিত। এছাড়াও এই জয়েন্ট অনেক মাংশপেশি ও সন্ধিবন্ধনীর সাহায্যে সংযুক্ত। হাঁটুর জয়েন্টের ভেতরটা সায়নোভিয়াল মেমব্রেন বা ঝিল্লি দিয়ে ঢাকা থাকে। এই সায়নোভিয়াল মেমব্রেন সায়নোভিয়াল ফ্লাইড তৈরি করে, যা হাঁটুর ঘর্ষণজনিত ক্ষয় রোধ করে। হাঁটুর জয়েন্টের চারপাশে থাকে সূক্ষ্ম নার্ভের জালিকা যা হাঁটুতে তৈরি হওয়া ব্যথার অনুভূতি ব্রেইনে পাঠিয়ে দেয় এবং আমরা হাঁটুতে ব্যথা অনুভব করি।


বিভিন্ন কারণে হাঁটু ব্যথা হতে পারে। তবে অন্যতম কারণ—হাড়ক্ষয় বাত বা অস্টিওআথ্রাইটিস। এর ফলে হাঁটুতে ব্যথা হয়, কখনো কখনো হাঁটু ফুলে যেতে পারে। হাঁটাচলা করতে, নামাজ পড়তে, সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা করতে অনেক কষ্ট হয়।


বসলে উঠতে পারেন না, দাঁড়ালে বসতে পারেন না— অনেকেই এই পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যান। বাড়ির বয়স্ক সদস্যদের চলাফেরা লক্ষ্যকরলেই তা বোঝা যাবে। বয়স বাড়লে শরীরে ক্যালশিয়ামের পরিমাণ ধীরে ধীরে কমতে থাকে। ক্যালশিয়ামের ঘাটতি হাড় ক্ষয়ের অন্যতম কারণ। তা ছাড়া আর্থারাইটিসও হাঁটুতে ব্যথার বড় একটি কারণ।


চিকিৎসকদের মতে, নিয়ম করে শরীরচর্চার অভ্যাস থাকলে এ ধরনের ব্যথা-বেদনা কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণে থাকে। শরীরচর্চা করার মতো শারীরিক শক্তি না থাকলেও অন্তত প্রতি দিন এক বার করে হাঁটা যায়, সে ক্ষেত্রেও মিলবে সুফল। হাঁটুতে ব্যথা হলে অতি অবশ্যই চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করে নিন। তবে ঘরোয়া উপায়ে হাঁটুর ব্যথা কমাতে ভরসা রাখতে পারেন রান্নাঘরেরতিন মশলায়।


হলুদ


হলুদে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট, যা যে কোনও ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও হলুদের কারকিউমিন উপাদান শরীরের অনেক ব্যথা-যন্ত্রণার উপশম দেয়। হলুদের ব্যথানাশক গুণ রয়েছে, যা স্বাভাবিক চলাফেরা করতে সাহায্য করবে। হাঁটুর ব্যথা কমাতে খেতে পারেন আদা-হলুদ চা। স্বস্তি পাবেন।


মেথি


অনেক জ্বালা-যন্ত্রণার অন্যতম উপশম মেথি। এর মধ্যে রয়েছে উচ্চমাত্রার অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট উপাদান। যা ব্যথা কমিয়ে স্বস্তি দেবে দ্রুত। হাঁটুর ব্যথায় কষ্ট পেলে প্রতি দিন নিয়ম করে উষ্ণ গরম জলে মেথির বীজ ভিজিয়ে খেতে পারেন। কিংবা সারা রাত ভিজিয়ে রাখা মেথির জল সকালে খালি পেটে খেলেও অনেক উপকার পাবেন।


দারুচিনি


রান্নার স্বাদ বাড়িয়ে তোলা ছাড়াও দারুচিনি শরীর সুস্থ রাখতেও সহায়তা করে। দারচিনি অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান হাঁটুর ব্যথা নিয়ন্ত্রণে রাখে। আর্থারাইটিসের সমস্যা থাকলে দারচিনি বেশ কার্যকর। সকাল কিংবা বিকেলের চায়ে দারুচিনি মিশিয়ে খেতে পারেন। ব্যথা কমবে।