আত্মহত্যা করেছেন মডেল রাউধা, ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

Suicide, model, raudha
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: রাজশাহীর ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী রাউধা আথিফ (২০) আত্মহত্যা করেছেন। মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

শুক্রবার (৩১ মার্চ) দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত হয়।

এ বিষয়ে ডা. এনামুল হক বলেন, প্রাথমিকভাবে হত্যার কোন আলামত পাওয়া যায়নি। তবে ভিসেরা প্রতিবেদনের জন্য মরদেহ থেকে কিছু আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। ভিসেরা প্রতিবেদন পেলেই রাউধার মৃত্যু নিয়ে চিকিৎসকরা পরিস্কার ধারণা দিতে পারবেন। দু’একদিনের মধ্যেই ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পুলিশকে দিয়ে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে রাউধা আথিফের মরদেহ তার নিজ দেশ মালদ্বীপে নেয়া হবে কি না তা এখনো জানায়নি পরিবার। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার রাতের মধ্যে রাউধা আথিফের বাবা মোহাম্মদ আতিফ, মা আমিনা মহাসিমাত ও তার এক ভাই রাজশাহী এসে পৌঁছান। তাদের সঙ্গে রয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত মালদ্বীপের হাই কমিশনার আইশাদ শান শাকির।

নগরীর শাহমখদুম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিল্লুর রহমান জানান, ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ মর্গ থেকে রামেক হাসপাতালের হিমঘরে নেয়া হয়েছে।

ওসি জিল্লুর রহমান জানান, মডেল রাউথার মৃত্যুর সম্ভাব্য কারণ খুঁজছেন তারা। তার ব্যবহৃত আইফোনের লক খুলছে না। আনলক করার মতো কোনো প্রযুক্তিও নেই পুলিশের কাছে। ফলে কার কার সঙ্গে তার সর্বশেষ কথা হয়েছিলো, চ্যাট হয়েছিলো সে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে না। তবে তার সহপাঠীদের সঙ্গে কথা বলে জানাগেছে, একদিন পরই তার টিউটোরিয়াল পরীক্ষা ছিলো। পড়াশোনা নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিলেন তিনি।

উল্লেখ্য, বুধবার (২৯ মার্চ) বেলা ১১টার দিকে ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ ছাত্রীনিবাসের দ্বিতীয় তলার ২০৯ নম্বর কক্ষ থেকে রাউধা আথিফের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। রাউধার বাড়ি মালদ্বীপের মালেতে। ২০১৬ সালের ১৪ জানুয়ারি ওই কক্ষে ওঠেন রাউধা।

পুলিশের ভাষায়, গলায় ওড়না পেঁচানো মরদেহ সিলিং ফ্যানে ঝুলছিলো, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। এ নিয়ে ওইদিনই হাসপাতালের সচিব আব্দুল আজিজ রিয়াজ থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেন। এ নিয়ে উপাধ্যক্ষ ডা. আব্দুল মুকিত সরকারকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ। শনিবার তদন্ত প্রতিবেদন দেবার কথা ওই কমিটির।

বিখ্যাত সাময়িকী ‘ভোগ ইন্ডিয়া’ ২০১৬ সালের অক্টোবরে তাদের নবম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সংখ্যায় ‘বৈচিত্র্যের সৌন্দর্য উদযাপন’ (সেলিব্রেটিং বিউটি ইন ডাইভার্সিটি) শিরোনামের ওই প্রতিবেদনে স্থান পেয়েছিলেন মালদ্বীপের এই মডেল।

ad