টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়রসহ ২ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

Tangail Municipality, including mayor, 2 people, arrest warrants,
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলে আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুর রহমান খান বাপ্পি হত্যা মামলায় টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরন ও কাদের সিদ্দিকীর (বীর উত্তম) ছোট ভাই আজাদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

সোমবার (৭ মে) এই মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের দিন গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে থাকা এমপি রানাকে আদালতে হাজির করা হলেও জামিলুর রহমান মিরন ও আজাদ সিদ্দিকী হাজির হননি। এর আগেও তারা কয়েক তারিখ আদালতে হাজির না থাকায় আদালতের বিচারক আবুল মনসুর মিয়া তাদের জামিন বাতিল করে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

মঙ্গলবার (৮ মে) সন্ধ্যায় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পিপি মনিরুল ইসলাম খান গ্রেপ্তারি পরোয়ানার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, জামিলুর রহমান মিরন ও আজাদ সিদ্দিকী উভয়েই টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানার বড় ভাই আমিনুর রহমান খান বাপ্পি হত্যা মামলার অভিযোগপত্রভুক্ত আসামী। দুজনেই এ মামলায় জামিনে আছেন।

উল্লেখ্য, ২০০৩ সালের ২১ নভেম্বর সন্ধ্যায় বাপ্পী টাঙ্গাইল শহরের কলেজ পাড়ার নিজ বাসা থেকে তারাবি নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বের হওয়ার পর তার বাসার অদূরে দুর্বৃত্তরা তাকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করে। ওই সময় বাপ্পীর সাথে থাকা মতিন নামে এক ব্যক্তিকেও একইভাবে হত্যা করা হয়।

ঘটনার দুইদিন পর ২৩ নভেম্বর বাপ্পীর বাবা আতাউর রহমান খান বাদী হয়ে টাঙ্গাইল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলায় সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকীর ছোট ভাই মুরাদ সিদ্দিকী ও আজাদ সিদ্দিকী, টাঙ্গাইল পৌরসভার তদানীন্তন মেয়র জামিলুর রহমান মিরন (বর্তমানেও তিনি মেয়র), বিএনপি নেতা আলী ইমাম তপনসহ ২০ জনকে আসামী করা হয়।

মামলাটি পরে ডিবিতে স্থানান্তর করা হয়। সর্বশেষ সিআইডি কর্মকর্তা খোরশেদ আলম তদন্ত শেষে ২০০৭ সালের ১২ জুলাই ১৭ জন আসামীর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

ad