দেশে গণতন্ত্র নেই, চলছে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা: ফখরুল

Fakrul Islam-Lalmonirhat
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: প্রধান বিচারপতির বক্তব্য তুলে ধরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন,‘সরকার নিম্ন আদালতগুলো নিজেদের আয়ত্ত্বে নিয়েছে। এবার উচ্চ আদালতে আয়ত্ত্বে নিতে চায়। এ কথায় স্পষ্ট বোঝা যায় দেশে গণতন্ত্র নেই।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে এখন সবচেয়ে খারাপ সময় চলছে। কারণ এখানে গণতন্ত্রের একটা মুখোশ পড়ে আছে। যারা দেশ শাসন করছে একটা মুখোশ পরে, তারা প্রকৃতপক্ষে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা চালু করেছে। শুধু একদলীয় শাসন ব্যবস্থা বললে ভুল হবে এক ব্যক্তির শাসন ব্যবস্থা চলছে। এখানে মানবাধিকার বলতে কিছু নেই। জবাবদিহিতা নেই। একটা সংসদ আছে যেখানে জনগণের সমস্যা সমাধানের কোনো আলোচনা করা হয় না। সংসদে যে বিরোধী দল আছে যাকে সবাই বলে গৃহপালিত বিরোধী দল। তারা জলসা পার্টির দর্শক হয়ে শুধু হাতে তালি দেন। আওয়ামী লীগ নির্বাচিত হয় নাই। শুধু গায়ের জোরে বন্দুক পিস্তল দিয়ে আর আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় ক্ষমতায় টিকে আছে।’

বৃহস্পতিবার বিকালে লালমনিরহাট জেলা বিএনপির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এই সরকার আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গুম করেছে। তাদের মা বোনেরা, তাদের সন্তানেরা এখনও অপেক্ষা করে থাকে। দরজায় কেউ টোকা দিলে ভাবে এই বুঝি এল। কিন্তু তারা আর আসে না।

আগামী নিবার্চনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা অবশ্যই নিবার্চন করতে চাই। কিন্তু সেই নিবার্চন হতে হবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। নিরপেক্ষ নিবার্চন কমিশনের অধীনে।

লালমনিরহাটে বিএনপির সম্মেলন ঘিরে সাঁজানো মঞ্চ সরিয়ে দেয়া হয়েছে, পতাকা লাগাতে দেয়া হয়নি এমন অভিযোগ তুলে আইন শৃংখলারক্ষাকারী বাহিনীর উদ্দেশ্যে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘বাংলাদেশ ১৬ কোটি মানুষের দেশ। এদেশে আমাদের স্বাধীন যে অধিকার আছে। গণতন্ত্রের যে অধিকার, তা আমরা অবশ্যই প্রয়োগ করবো।’

জেলা পরিষদ অডিটোরিয়াম চত্ত্বরে লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলুর সভাপতিতে অনুষ্ঠিত ওই সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম।

ad