পার্বত্য এলাকায় জ্বালানি ও খাবারের তীব্র সংকট, মানবিক বিপর্যয়

Hill areas, fuel, food, crisis
ad

জাগরণ ডেস্ক: পাহাড় ধসের ঘটনায় পাঁচ জেলায় দেড় শতাধিক মানুষের প্রাণহানীর মত মর্মান্তিক ঘটনার পর পার্বত্য এলাকায় জ্বালানি ও খাবারের তীব্র সংকটের কারণে মানবিক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। বিগত কয়েকদিন ধরেই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে খাবার।

গত ১১ তারিখ থেকে বিদ্যুত নেই রাঙ্গামাটিতে। খাবার পানি নেই। পুরো বাংলাদেশ থেকে যোগাযোগবিচ্ছিন্ন। রিক্সাহীন শহরটার অটোরিক্সাগুলোও চলছে না তেলের অভাবে। তেলের মজুদ দুই দিনেই শেষ। নেটওয়ার্ক এবং বিদ্যুতের অভাবে সব ব্যাংকের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

সড়ক যোগাযোগ চালু করতে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোর কাজ করছে। আগামী দুইদিনের মধ্যে রাস্তায় হেঁটে চলার উপযোগী করতে পারবে বলে জানিয়েছেন সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর ১৯ ইসিবি কোরের নেতৃত্বে গত দুইদিনে চট্টগ্রামের রানীর হাট থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার সড়কে ধসে পড়া ১৫টি স্থানে মাটি সরানো হয়েছে।

তবে এক সেনা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, শালবন এলাকায় প্রায় দেড়শ ফিট রাস্তাসহ পাহাড় ধসে পড়ায় সরাসরি সড়ক যোগাযোগ দ্রুত চালু করা সম্ভব নয়।

ad