মাদকবিরোধী অভিযান: নিহত আরও ৩

Gun fight
ad

জাগরণ ডেস্ক: চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে তিন জেলায় আরও তিন মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার (৭ জুন) রাতে ঠাকুরগাঁও, রংপুর ও দিনাজপুর জেলায় এসব ঘটনা ঘটে।

ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ভদ্রেশ্বরী বন্দর গ্রামে বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে একজন নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ভদ্রেশ্বরী বন্দর গ্রামের চেকপোস্ট এলাকায় গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে বলে রানীশংকৈল থানার ওসি মো. আব্দুল মান্নানের ভাষ্য।

নিহতের নাম শামীম হোসেন (৪২)। সে রাণীশংকৈল উপজেলার ভবানন্দপুর গ্রামের আব্দুল সাত্তারের ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাদক আইনের ১১টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশের দাবি।

রানীশংকৈল থানার ওসি মো. আব্দুল মান্নান বলেন, ভদ্রেশ্বরী বন্দর গ্রামের একদল মাদক ব্যবসায়ী জড়ো হয়েছে বলে খবর পায় পুলিশ। রাত দেড়টার দিকে পুলিশ সেখাপনে গেলে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় মাক ব্যবসায়ীরা।  এ সময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি করে। প্রায় ২০ মিনিট গোলাগুলির পর মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটে। পরে সেখানে মাদক ব্যবসায়ী শামীম হোসেনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, তাকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ অভিযানে পুলিশের দুই সদস্যও আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে দেশীয় অস্ত্র ও ৬৪০টি ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

রংপুর

নগরীর তিন রাস্তার মোড়ে রাত ৩টার দিকে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আবু মুসা ওরফে বিছ কালাই নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

নিহত মুসা রংপুর সিটি করপোরেশনের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের হনুমানতলা বস্তির আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে।তার নামে কোতোয়ালি থানায় মাদক ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে ১১টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশের ভাষ্য।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাবুল মিয়া জানান, ঘটনাস্থল  থেকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

দিনাজপুর

রাতে সদরের উথরাইল ইউনিয়নের খাড়িপাড়ায় ‘মাদক ব্যবসায়ীদের’ দুই পক্ষের গোলাগুলিতে একজন নিহত হয়েছেন। নিহতের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

দুইদল মাদক বিক্রেতাদের মধ্যে গোলাগুলিতে ওই ব্যক্তি নিহত হয়েছে বলে দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ওসি রেদওয়ানুর রহিম জানিয়েছেন।

ad