রাজশাহীকে ভিন্নধর্মী আধুনিক নগরী হিসেবে গড়তে চাই: বাদশা

Rajshahi, modern city, Badsha
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: রাজশাহীর উন্নয়নের বাঁধার সৃষ্টির জন্য এক ধরণের দুষ্টু চক্র কাজ করছে। আমরা তাদেরকে পরাভুত করে রাজশাহীকে ভিন্নধর্মী আধুনিক নগরী গড়ে তুলতে চাই। তাহলে রাজশাহী হবে ভিন্নধর্মী আধুনিক মহানগরী – এমন মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা।

শুক্রবার (২৩ জুন) বেলা ১১টায় রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্টির বোর্ড রুমে রাজশাহী অঞ্চলের দাবি উপস্থাপন প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, রাজশাহীতে যা উন্নয়ন হয়েছে তা সরকার আর রাজশাহীবাসীর আকাঙ্খার ফসল। আমি রাজশাহীর সংসদ হিসেবে আমি আমার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। রাজশাহীবাসীর উন্নয়নের কাজগুলো করার জন্য আমি কোন কৃতিত্ব দাবি করতে পারি না। আমি আমার কর্তব্য পালন করার চেষ্টা করি।

সাংসদ বাদশা বলেন, রাজশাহীর আরডিএ মার্কেট অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। মার্কেটকে অকেজো, ঝুঁকিপূর্ণ করেছে প্রকৌশলীরা। আমরা মার্কেট ফাঁকা করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু মার্কেট নিয়ে রাজনীতি শুরু হয়। রাজশাহী মানুষের জীবন নিয়ে অর্থনীতি নিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে। গণপূর্তমন্ত্রী বলেছেন, রাজশাহীতে হবে অত্যাধুনিক মার্কেট করা হবে। তা আরডিএকে প্রস্তাব করা হয়েছে। কিন্তু আরডিএ দুষ্টু চক্রের বাঁধায় সেই অত্যাধুনিক মার্কেট তৈরি হচ্ছে না।

তিনি বলেন, রাজশাহী শিক্ষা নগরী। এই শিক্ষা নগরীর সক্ষমতা বাড়াতে হবে। সাংস্কৃতিক চর্চা ক্ষেত্রে রাজশাহীকে বিকশিত করতে হবে।

বাদশা বলেন, রাজশাহী থেকে সরাসরি প্রধান বন্দর নগরী চট্টগ্রাম ও প্রধান পর্যটন কেন্দ্র কক্সবাজার। এই প্রধান দু’টি কেন্দ্র থেকে রাজশাহী বিচ্ছিন্ন। রাজশাহী থেকে সরাসরি চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার যাওয়া যায় না। এই দাবি সংসদে উত্থাপন করা হয়েছে। উত্তরবঙ্গের প্রধান দাবি রাজশাহী থেকে চট্টগ্রাম রুটে অতিদ্রুত ট্রেন দিতে হবে।

রাজশাহীর এই সংসদ সদস্য বলেন, রাজশাহীর বিশুদ্ধ পানি নিয়ে আমি সাড়ে তিন বছর স্থায়ী কমিটির সঙ্গে ফাইট করেছি পানির মৌলিক পরিবর্তন নিয়ে। প্রধানমন্ত্রী এই প্রকল্প গত সপ্তাহে পাস করেছেন।

বন্ধ টেক্সটাইল মিল সম্পর্কে তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর বাংলদেশে এই টেক্সটাইল মিল প্রথম শিল্প। আমি টেক্সটাইল মিল চালুর পক্ষে। বাজেট বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশে সুনির্দিষ্ট কত কর্মসংস্থান হবে তা অর্থমন্ত্রী বলেননি। টেক্সটাইল মিল চালু হলে রাজশাহীর অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

তিনি আরও বলেন, অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন ‘উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ’। রাজশাহীকেও উন্নয়নের মহাসড়কে রাখতে হবে। সেই মহাসড়কে রাজশাহীও উঠতে চায়। রাজশাহীর সংসদ সদস্য হিসেবে আমি কাজ করছি এবং মনোযোগের সাথে করছি।

সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, রাজশাহীতে আমরা যে কাজগুলো করেছি সংসদে চিকিৎসা, বিশ্ববিদ্যালয় বিল পাস হয়েছে। রাজশাহীতে অতি দ্রুত চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয় হবে। রাজশাহীতে শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের নামে কলেজ হয়েছে। সে কলেজ সরকারিকরণ করা হয়েছে। আরও একটি কলেজ সরকারিকরণ করা হয়েছে কিন্তু তার নাম ঠিক হয়নি। নয়বছরে রাজশাহী দুইটা কলেজ ও একটি বিশ্ববিদ্যালয় পেয়েছি। শিক্ষার ক্ষেত্রে অনেক অগ্রগতি হয়েছে।

রাজশাহীর আইটি ভিলেজ সম্পর্কে তিনি বলেন, রাজশাহীতে আইটি ভিলেজের কাজ চলছে। আইটি ভিলেজ দৃঢ়তার সাথে ২০১৯ সালের মধ্যে শেষ করা হবে। রাজশাহীতে আইটি ভিলেজ হলে ১০ হাজারও বেশি কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।

ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক বলেন, রাজশাহীর সকল স্কুল-কলেজের অবকাঠামোগত উন্নয়ন হচ্ছে। আগামী বছরের মধ্যে সকল স্কুল-কলেজের অবকাঠামোগত সমস্যা থাকবে না।

ad