শহীদ ময়েজউদ্দিনের ৩৩তম শাহাদাত বার্ষিকী আজ

Shaheed Moyezuddin
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে নিহত সাবেক এমপি শহীদ ময়েজউদ্দিনের ৩৩তম শাহাদাত বার্ষিকী আজ। তিনি বর্তমান সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বাবা।

বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) গাজীপুরে শহীদ ময়েজউদ্দিনের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে।

কর্মসূচির অনুযায়ী বেলা ১১টায় গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জের তুমুলিয়া ইউনিয়নে এবং বেলা সাড়ে ১১টায় কালীগঞ্জ পৌরসভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

পরে দুপুর ১২টায় কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চত্তরে শহীদ ময়েজউদ্দিনের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করা হবে। এছাড়া, জেলা আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে নানা কর্মসূচি পালিত হবে।

উল্লেখ্য, ১৯৮৪ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর তৎকালীন স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য সারাদেশে ২২ দল হরতাল আহ্বান করে। এ কর্মসূচির সমর্থনে মিছিলে নেতৃত্ব দেয়ার সময় তৎকালীন এরশাদ সরকারের লেলিয়ে দেয়া কতিপয় সন্ত্রাসী গাজীপুরের কালীগঞ্জ থানার সামনে ময়েজ উদ্দিনের ওপর হামলা চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি শাহাদাত বরণ করেন।

শহীদ মোহাম্মদ ময়েজউদ্দিন ১৯৩০ সালের ১৭ মার্চ বর্তমান গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার বড়হরা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মো. ছুরত আলী এবং মাতার নাম শহরবানু।

তিনি ঐতিহাসিক আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা পরিচালনা করার জন্য গঠিত মুজিব তহবিলের আহ্বায়ক ছিলেন। একজন বিচক্ষণ আইনজীবী ও রাজনীতিক হিসেবে অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে তিনি ঐতিহাসিক এ দায়িত্ব পালন করেন।

মোহাম্মদ ময়েজউদ্দিন উল্লেখযোগ্য সময় ধরে বৃহত্তর ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, পরে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭০ এবং ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে কালীগঞ্জ নির্বাচনী এলাকা থেকে যথাক্রমে প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য এবং জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

রাজনীতির পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কাজে জড়িত ছিলেন। ১৯৭৭ সাল থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ রেডক্রস (বর্তমানে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট) সোসাইটির নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। একাধারে বাংলাদেশ পরিবার পরিকল্পনা সমিতির (এফপিএবি) মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

ad