সব দল চাইলে জাতীয় নির্বাচন ইভিএম পদ্ধতিতে হবে: সিইসি

national election, EVM, CEC,
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, সব রাজনৈতিক দল এবং ভোটাররা যদি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) পক্ষে মত দেয়, তখন জাতীয় নির্বাচনও ইভিএম পদ্ধতিতে নেয়া হবে।

বৃহস্পতিবার (৭ জুন) পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় স্মার্ট কার্ড (জাতীয় পরিচয়পত্র) বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি ওই কথা বলেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমাদের যা করা দরকার, ভবিষ্যতে তা আমরা করবো। কোনো দলের আস্থাহীনতার কোনো বিষয় নেই। সব দলেরই আমাদের ওপর আস্থা থাকবে।

সাংবাদিকের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, স্মার্ট কার্ড বিতরণ হয়ে গেলে সব স্থানীয় সরকার নির্বাচন ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে নেয়া হবে। আইনে আছে স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোতে ইভিএমসহ যেকোনো প্রযুক্তি ব্যবহার করা যাবে। সে আইন পরিবর্তন হয়নি। আর স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট দেয়ার বিষয়ে বিএনপি কিংবা অন্য কোনো দল বিরোধীতা করে না।

সিইসি বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে স্থানীয় এলাকার সাংসদ নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে পারবেন না। আমরা বলেছি, অন্য এলাকার সাংসদেরা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে পারবে। কারণ তাদের কোনো দপ্তর নেই, তারা অন্য এলাকায় কোনো কমিটমেন্ট করলেও তা রক্ষা করতে পারে না।

কে এম নুরুল হুদা বলেন, যেহেতু রাজনৈতিক মনোনয়নে স্থানীয় সরকার নির্বাচন হয়। সে কারণে আমরা মনে করি রাজনৈতিকভাবে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করলে কোনো সমস্যা নেই।

তিনি বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ইভিএম পদ্ধতি চায় না। তবে আমরা যদি দেখাতে পারি ইভিএম পদ্ধতি সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য একটি ভালো এবং নিরপেক্ষ একটি যন্ত্র। তাহলে আমরা আশা করি বিএনপিও সম্মত হবে।

সেনা মোতায়েন প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, বিগত জাতীয় নির্বাচনেও সেনা মোতায়েন হয়েছে। আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও সেনা মোতায়েন হতে পারে। এটাও কমিশনের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করতে হবে। এটা আওয়ামী লীগ-বিএনপির বিষয় না। এটাও নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত যে, সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনার ক্ষেত্রে কি কি করলে ভালো হবে সেটাই আমরা করবো।

ad