প্রধানমন্ত্রীর দেয় ঘর পেল বাঘারপাড়ার ২৬৮ পরিবার

Home made
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: জমি আছে, ঘর নেই; যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার এমন ২৬৮ পরিবারকে সরকারিভাবে গৃহনির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে। বর্তমান সরকারের প্রতিশ্রুতি দেশে কোনো মানুষই গৃহহীন থাকবে না। তাই “আশ্রয়নের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার” সরকারের এ শ্লোগানে সামিল হয়ে এসব পরিবারকে ঘর তুলে দেয়া হচ্ছে।

বাঘারপাড়া উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ২৫৮টি পরিবার পাবে এই আধাপাকা ঘর। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি পরিবার বুঝে পেয়েছেন তাদের ঘর। অপরগুলোর নির্মাণ কাজ চলছে দ্রুত গতিতে।

এর মধ্যে জহুরপুর ইউনিয়নে ২১টি, বন্দবিলায় ২৫টি, রায়পুরে ৩২টি, নারিকেলবাড়িয়ায় ২৫টি, ধলগ্রামে ২৮টি ও দোহাকুলা ইউনিয়নে একটি পরিবারকে এ ঘর দেয়া হয়েছে।

প্রতিটি ঘর নির্মাণে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে এক লাখ টাকা। এ পর্যন্ত প্রায় ১১২টি ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। উপজেলায় আরও ১২৬টি ঘরের নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। বেশ কয়েকটি ঘর হস্তান্তরও করা হয়েছে।

এদিকে, নতুন ঘর পেয়ে আনন্দে আত্মহারা ওই ২৬৮ পরিবার। ঘর দেয়ার জন্য তারা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

বন্দবিলা ইউনিয়নের বড়খুদরা গ্রামের মৃত ফারুক হোসেনের স্ত্রী ভিক্ষুক আয়তন নেছা। তিনি বলেন, এখন আর বৃষ্টিতে ভিজে ঘুমাতি হবে না। প্রধানমন্ত্রীর দেয়া এই ঘর স্মৃতি হয়ে থাকপি।’

তার মতো আনন্দে ভাসছেন একই ইউনিয়নের দক্ষিণ চাঁদপুর গ্রামের হেলেনা বেগম। তিনি বলেন, এতদিন সোলার (পাটকাঠি) ঘরে থাকতাম। আমার একটি পাকা ঘর হবে, কল্পনাও করিনি।

একই কথা জানালেন গোলাপী খাতুন নামের আরেক নারী। তিনি জানান, জীবনে ভাল কোন ঘরে ঘুমাতি পারিনি। বাকি জীবনটা অন্তত ভাল একটি ঘরে কাটাতি পারবো।

এ বিষয়ে ঘর নির্মাণ কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানাজ বেগম বলেন, প্লান ও ডিজাইন অনুযায়ী ঘরগুলি নির্মাণ করা হচ্ছে। নির্মাণ কাজ সঠিকভাবে করার জন্য কমিটির সদস্যদের নিয়ে নিয়মিত দেখভাল করছি। দ্বিতীয় কিস্তিতে বরাদ্ধ পাওয়া ১২৬টি ঘরের কাজও শুরু হয়েছে।

ad