প্রেমিকার আত্মহত্যা, খবর শুনে ট্রেনের নিচে ঝাপ প্রেমিকের

Suicide EB
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই শিক্ষার্থীর লাশ দুই ঘণ্টার ব্যবধানে উদ্ধার করা হয়েছে। সূত্র বলছে, প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে পারিবারিক দ্বন্দ্বে তাঁরা আত্মহত্যা করেছেন।

নিহতরা হলো-  ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০১১-১২ সেশনের শিক্ষার্থী মুনতা হেনা ও রোকনুজ্জামান।

বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) সন্ধ্যা ও রাতে দুই ঘণ্টার ব্যবধানে পৃথক স্থান থেকে দুজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

জানাগেছে, ইবির আল হাদিস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আশরাফুল আলমের মেয়ে মুমু। তার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে প্রেম ছিল তার সহপাঠী রোকনুজ্জামানের। কিন্তু পরিবার থেকে তাদের প্রেমের সম্পর্ক মেনে নেয়নি। এরপর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঝিনাইদহ শহরের নিজ বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে মুমু।

এদিকে কুষ্টিয়া শহরের পিয়ারাতলার একটি ছাত্রাবাসে থাকতেন রোকনুজ্জামান। এ খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৮টার দিকে সদর উপজেলার মতি মিয়ার রেলগেট এলাকায় পোড়াদহ থেকে ছেড়ে যাওয়া গোয়ালন্দগামী শাটল ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। তার বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা থানার কার্পাসডাঙ্গা এলাকায়।

দুই শিক্ষার্থীর সহপাঠীদের ভাষ্যমতে, তাঁরা দুজন একে অপরকে ভালোবাসতেন। বিষয়টি মুনতা হেনার পরিবার মেনে নেয়নি। এ জন্য তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

মুনতা হেনার বাবা মুহাম্মদ আশরাফুল আলম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-হাদিস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) শেখ এমদাদুল হক জানান, মুমুর লাশ তার নিজ ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়। সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করছি। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

পোড়াদহ জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল আজিজ জানান, কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার মতি মিয়া রেলগেট এলাকায় পোড়াদহ থেকে গোয়ালনন্দগামী ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে এক যুবক আত্মহত্যা করেছে। লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ad