স্বামীকে বেঁধে রেখে নববধূকে গণধর্ষণ!

Rape
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে গভীর রাতে ঘর থেকে তুলে নিয়ে স্বামীকে বেঁধে রেখে এক নববধূকে গণধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (৬ এপ্রিল) গভীর রাতে উপজেলার উচাখিলা এলাকায়। এ ঘটনায় পুলিশ দুই যুবককে শনিবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে আটক করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের একটি গ্রামের এক যুবক গত দুই মাস আগে এক তরুণীকে বিয়ে করেন। গত শুক্রবার বিকালে ওই যুবক স্ত্রীকে নিয়ে বাড়িতে ফেরেন। পরে ওইদিন গভীর রাতে উচালিখার মরিচারচর নামাপাড়া গ্রামের আল আমিন, রতন মিয়া, আবুল বাশার ওরফে বাদশাসহ অন্তত ৭ ব্যক্তি মিলে স্বামী-স্ত্রী দুইজনকেই ঘর থেকে তুলে নিয়ে যায়।

পরে স্বামীকে বেঁধে রেখে নববধূকে ব্রহ্মপুত্র নদের বালু চরে নিয়ে গিয়ে দলবেঁধে গণধর্ষণ করে।

নির্যাতিতার স্বামী জানিয়েছেন, রাত ১টার দিকে হঠাৎ তাদের দরজায় এসে ডাকাডাকি করে প্রতিবেশী আল আমিনসহ কয়েকজন। দরজা খুলতেই তিনজন তাকে ধরে বাড়ির কাছে একটি স্থানে নিয়ে হাত-পা ও মুখ বেঁধে ফেলে। অন্যরা তার স্ত্রীকে তুলে নিয়ে যায়।

নির্যাতিতা নববধূ জানিয়েছেন, চার ব্যক্তি তার মুখ বেঁধে বাড়ি থেকে পাশের ব্রহ্মপুত্র নদের বালু চরে নিয়ে যায়। সেখানে তার ওপর রাতভর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়।

এদিকে, নববধূকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করার খবর পেয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানা পুলিশ শনিবার সকালে এলাকায় অভিযান শুরু করে।  ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ আবুল বাশার ওরফে বাদশা মিয়া ও রতন মিয়া নামের দুই যুবককে আটক করে।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো. গোলাম মাওলা বলেন, নারীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় সাতজনকে আসমী করে মামলা হয়েছে। দুই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

ad