সড়কে শৃঙ্খলা না আসলে শামীম ওসমানের রাস্তায় নামার হুমকি

Shamim Osman
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, শিক্ষার্থীরা যেভাবে রাস্তায় ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করেছে তার ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে প্রশাসনকে। আমি নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসনকে বলেছি সার্বিক ব্যবস্থা নিতে। রবিবারের মধ্যে সড়কে শৃঙ্খলা না আসলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মাঠে নামবো।

শুক্রবার (৩ আগস্ট) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ মহানগরীর চাষাড়ায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জুম’আর নামাজের শেষে নারায়ণগঞ্জের শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে বিভিন্ন ধরনের যানবাহনের গাড়ির কাগজপত্র ও ড্রাইভিং লাইসেন্স চেয়ে তল্লাশি চালায়। এ সময় কাগজপত্রবিহীন একটি পুলিশের গাড়িসহ বিভিন্ন যানবাহনের চাবি জব্দ করে শিক্ষার্থীরা। পরে সাংসদ শামীম ওসমান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের মাঝে হাজির হন। তিনি শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করে এবং তাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দেন। পরে তারা রাস্তা থেকে সরে যায় তারা।

এ সময় শামীম ওসমান বলেন, সমাজকে একটা ধাক্কা দেয়ার দরকার ছিল, তোমরা তা দিয়েছো। বাকিটা প্রশাসন করবে। তোমরা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছো কিভাবে ট্রাফিকগিরি করতে হয়। লাইসেন্স নাই চাবি আটকিয়েছো, এটাও ভালো করেছো। চাবিগুলো আমার কাছে দাও।

তখন অর্ক নামে এক ছাত্র একটি চাবির ছড়া শামীম ওসমানের হাতে তুলে দেয়। তখন শামীম ওসমান বলেন, এই চাবি নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলামের কাছে থাকবে। সেখান থেকে গাড়ির মালিকরা তাদের চাবি সংগ্রহ করবে।

তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য বলেন, তোমরা সকলে মিলে একটা সিদ্ধান্ত নাও শহরের কোন কোন স্থানে ফুটওভার ব্রিজ, স্পিড ব্রেকার প্রয়োজন। আর কি কি প্রয়োজন সেসব তোমরা তোলারাম কলেজ, মহিলা কলেজ ও অন্যান্য কলেজের শিক্ষার্থীরা মিলে তালিকা করো। তারপর সোমবার তা জমা দাও। আমি এরপর সব ব্যবস্থা নেব। আপাতত আন্দোলন স্থগিত রাখো, তোমরা বাড়ি যাও।

পরিশেষে তিনি ঢাকার কুর্মিটোলায় বাস চাপায় নিহত দুই শিক্ষার্থীর জন্য এক মিনিট নিরবতা পালন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম, ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদের, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাত্তার মিয়া।

ad