আটঘরিয়ায় ভূমিমন্ত্রীর সামনে দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ৬

পাবনা
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: পাবনার আটঘরিয়ায় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফের সামনে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনায় উভয়পক্ষের কমপক্ষে ছয়জন আহত হয়েছেন।

শনিবার (৪ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা বৃক্ষ মেলা চলাকালে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর উভয়পক্ষের মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনো সময়ে বড় ধরণের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। যেকোনো ধরনের নাশকতার আশঙ্কায় বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আহতদের মধ্যে পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি বাধন, ছাত্রলীগ কর্মী পার্থ, রুমন এবং যুবলীগ কর্মী জাহিদ ও তরিকে আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও মন্ত্রী সমর্থিত চাঁদভা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম কামালও লাঞ্ছিত হন বলে স্থানীয়রা জানান।

আটঘরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগে ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলু ও পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন পক্ষের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই বিরোধ চলে আসছে বলে স্থানীয়রা জানান। সংঘর্ষের ঘটনায় একে অপরকে দোষারোপ করেছে দুই পক্ষের নেতারা।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্রে জানা যায়, আটঘরিয়া উপজেলা বৃক্ষ মেলা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ভূমিমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ভূমিমন্ত্রী সমর্থিত পক্ষ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন পক্ষের সমর্থকরা মিছিল নিয়ে উপজেলা চত্বরে প্রবেশ করার সময়ে উভয় পক্ষ মুখোমুখি হলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

মন্ত্রী সমর্থিত আওয়ামী লীগ নেতা ও চাঁদভা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম কামাল বলেন, ভূমিমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে শান্তিপূর্ণভাবে মিছিল নিয়ে প্রবেশের সময়েই উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি, পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন সমর্থিতরা তাদের ওপর হামলা চালিয়ে নেতা-কর্মীদের মারপিট শুরু করে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন দাবি করেন, বৃক্ষ রোপণ অনুষ্ঠানে ভূমিমন্ত্রী সমর্থিত সাইফুল ইসলাম কামাল একটি মিছিল নিয়ে এসে তার নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট শুরু করে। এতে কয়েকজন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন।

তিনি বলেন, মন্ত্রীর আস্কারা পেয়ে এবং নেপথ্য ইন্ধনে তার পক্ষের আওয়ামী লীগের অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী বাহিনী আমার নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা একের পর এক ষড়যন্ত্রের শিকারে পরিণত করা হচ্ছে।

আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, উপজেলায় ফলজ ও বৃক্ষ মেলা চলাকালে উপজেলা গেটের মূল ফটকে শ্লোগান দেয়াকে কেন্দ্র করে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। দ্রুত ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ দেয়নি।

ad