আমতলীতে জিনের বাদশা দুলাভাইকে পেটালেন ৩ শ্যালিকা!

জিনের বাদশা, দুলাভাই, ৩ শ্যালিকা,
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: বরগুনার আমতলীতে জিনের বাদশা দুলাভাই আলতাফ হোসেনকে পিটিয়েছেন তার তিন শ্যালিকা। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের লোদা শাপলা চত্ত্বর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত জিনের বাদশা দুলাভাইকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ওই রাতে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, আজমত আলীর ছেলে আলতাফ ফকিরের সাথে ২০০৩ সালে উপজেলার আমতলীর চাওড়া লোদা গ্রামের মোতাহার হোসেন আকনের মেয়ে রাহিমার সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে আলতাফ হোসেন জিনের বাদশা সেজে শ্বশুরবাড়িতে পুকুরের মধ্যে শাপলা ও ময়ূরপঙ্ঘী নির্মিত আস্তানা নির্মাণ করে।

ওই আস্তানায় বসে সাধারণ মানুষকে জিনের মাধ্যমে তাবিজ কবজ ও ঝাড়ফুঁক দিয়ে প্রতারণা করতে থাকে। ২০১৭ সালে শ্বশুর মোতাহার উদ্দিনকে জিনের ভয় দেখিয়ে ৭২ শতাংশ জমি স্ত্রী রাহিমার নামে লিখে নেয়। গত বছর নভেম্বর মাসে আলতাফের শ্বশুর মারা যান।

গত বৃহস্পতিবার আলতাফের তিন শ্যালিকা নাসিমা, পরী ও ডলি তাদের বাবার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। ওইদিন সন্ধ্যায় জমি নিয়ে জিনের বাদশা আলতাফের সাথে তিন শ্যালিকার কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে জিনের বাদশা তাদের মারধরের চেষ্টা করে।

পরে শ্যালিকারা ক্ষিপ্ত হয়ে জিনের বাদশা দুলাভাই আলতাফকে বেধড়ক মারধর করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে জিনের বাদশাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, আলতাফ জিনের বাদশা সেজে মানুষের সাথে প্রতারণা করে টাকা কামাচ্ছে। তার বিরুদ্ধে কেউ অবস্থান নিলেই সে জিনের ভয় দেখিয়ে নিবৃত করে থাকে। সাধারণ মানুষকে তাবিজ কবজের নামে ঝাঁড়ফুঁক দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

তারা বলেন, পুকুরে শাপলা ও ময়ূরপঙ্খী চিহিৃত আস্তানা তৈরি করেছে। ওই আস্তানায় বসে মানুষের সাথে বিভিন্ন রকমের প্রতারণা করে থাকে।

আমতলী থানার ওসি মো. আলাউদ্দিন মিলন বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ad