ইসলামপুরে পাউবোর জমি দখলে, হুমকিতে বাঁধ

Jamalpur Pic
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার গুঠাইল হার্ড পয়েন্টের সংরক্ষিত এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কোটি কোটি টাকা মূল্যের সরকারি জমি স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে নিয়েছে। এতে চলতি বন্যা মৌসুমে হুমকির মুখে রয়েছে যমুনার বাম তীর সংরক্ষণ প্রকল্প ফ্যাপ-২ ও কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত অসংখ্য স্থাপনা। অভিযোগ রয়েছে ওই সরকারি জমি উদ্ধারে পাউবো ও স্থানীয় প্রশাসনের কোনো উদ্যোগ নেই।

জানা যায়, উপজেলার ঐতিহ্যবাহী কৃষিপণ্যের বৃহত্তম হাট গুঠাইল বাজার ও কোটি কোটি টাকার স্থাপনা যমুনার ভাঙন থেকে রক্ষায় ৯০ দশকে ফ্রান্স ও জার্মান সরকারের অর্থায়নে ফ্যাপ-২ এর আওতায় প্রায় ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে গুঠাইলে প্রায় ৫০০ মিটার যমুনার বামতীর সংরক্ষণ বাঁধ রিভেটম্যান্ট টেস্ট-স্ট্রাকচার নির্মাণ করা হয়। এটি নির্মাণের ফলে গুঠাইল বাজার, স্কুল-কলেজ, মসজিদ-মাদ্রাসা, ভূমি অফিসসহ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা ও ঘরবাড়ি নদী ভাঙন থেকে রক্ষা পেলেও বাঁধের অধিকাংশ সরকারি জমি এখন প্রভাবশালীদের দখলে চলে গেছে। এতে চলতি বন্যায় বাঁধটির অস্তিত্ব হুমকির মুখে রয়েছে।

সূত্র জানায়, রিভেটম্যান্ট টেস্ট-স্ট্রাকচার এলাকা কম্পন বা বলপ্রয়োগ মুক্ত রাখতে পানি উন্নয়ন বোর্ড বাঁধ এলাকায় কয়েক একর জমি অধিগ্রহণ করে বাঁধটিকে সংরক্ষিত এলাকা ঘোষণা করে। কিন্তু গুঠাইল এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি পাউবোর সংরক্ষিত সরকারি জমি অবৈধভাবে দখল করে গুদাম, রাইস মিল, স মিল ও দোকান নির্মাণ করে নানাভাবে বলপ্রয়োগ ও কম্পনের সৃষ্টি করছে।

এলাকাবাসী জানায়, ২০০৩ সালের ভয়াবহ বন্যায় বাঁধে ধস দেখা দিলে তা মেরামত করা হয়। ২০১৬ সালের বন্যায় বাঁধে আবারো ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ‘রেড এলার্ট’ জারি করে টেস্ট-স্ট্রাকচার এলাকা থেকে সকল অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দেয় সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। পাউবো অবৈধ দখলদার উচ্ছেদের নোটিশ জারি করে ম্যাজিষ্ট্র্যেট নিয়োগ করে। কিন্তু আজও উদ্ধার হয়নি পাউবোর দখল হয়ে যাওয়া জমি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রভাবশালীরা বাঁধের সরকারি জমির অধিকাংশই দখল করে রাইস মিল, ৬টি স মিল, ১৫টি গুদাম, ২৫ দোকান ও ক্লাব নির্মাণ করেছে। মিল কারখানা ও গুদামের মালামাল আনা নেয়ার জন্য সংরক্ষিত এলাকায় ১০ থেকে ২০ মেট্রিক টন মাল ভর্তি ট্রাক, পিকআপ ভ্যান ও ভটভটি প্রবেশ করে বাঁধ এলাকায় অতিরিক্ত কম্পনের সৃষ্টি করছে। এ ছাড়া মিলকারখানার কম্পনের প্রভাবে টেস্ট-স্ট্রাকচারটির ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।

এলাকবাসীর অভিযোগ, জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের রহস্যজনক ভূমিকার কারণে জমি উদ্ধার হচ্ছে না। ফলে ঐতিহ্যবাহী গুঠাইল বাজার রক্ষার শক্ত কাঠামো বাঁধটি দিন দিন বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

জামালপুর পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী নব কুমার চৌধুরী জানান, বাঁধের বেলগাছা অংশে যমুনার সংরক্ষণের কাজ শুরু হলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে কথা বলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ব্যবস্থা করা হবে। প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালতও পরিচালনা করা হবে।

ad