এসএসসিতে গুরুদাসপুরের সেরা বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুল

gurudaspur
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় ফলাফলের ভিত্তিতে এসএসসিতে সেরা হয়েছে বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুল। এই বিদ্যালয় থেকে ১৬৩ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে কৃতকার্য হয়েছে ১৫২ জন। মোট জিপিএ-৫ এসেছে ২৪টি। এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী উম্মে হাফসা মীম বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ১২১০ নম্বর পেয়ে উপজেলার সেরা শিক্ষার্থীর খেতাব অর্জন করেছে।

গুরুদাসপুর মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, গুরুদাসপুর উপজেলার ২৬টি বিদ্যালয়ের ২ হাজার ১৫৮ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। পাস করেছে ১ হাজার ৭৭০জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪৪ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে পৌর সদরের বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুল ফলাফলে উপজেলার সেরা হয়েছে।

তিনি জানান, দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে গুরুদাসপুর পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়ে মোট পরিক্ষার্থী ছিল ১১১ জন। পাস করেছে ৯৬ জন। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৯ জন। এছাড়া, উপজেলার নাজিমুদ্দিন স্কুলে ১৪, ধারাবারিষা উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৩, নাজিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৩ খুবজিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০, দূর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৪, মশিন্দা কারিগরি স্কুলে ৬, বিলশা উচ্চ বিদ্যালয়ে ১, কাছিকাটা স্কুলে ২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। পাশের হার ৮২ শতাংশ। এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের অধীনে পরিক্ষায় অংশ নেয় ২৪৮ জন শিক্ষার্থী। পাস করেছে ১৬০ জন। ভোকেশনাল থেকে ৬০৬ জন অংশ নিয়ে পাশ করেছে ৪৩২ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২১ জন।

বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুলের (বিজ্ঞান বিভাগ) জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থী উম্মে হাফসা মীম উচ্ছ্বাসিস কন্ঠে জানায়, বাবা একটি প্রতিষ্ঠানে পিয়ন পদে চাকরি করেন। তার কষ্ট দেখে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন বুকে ধারণ করে আমি কঠোর পরিশ্রম করেছি। তাই ফলাফলও ভালো হয়েছে। আগামীতেও ফলাফল ধরে রাখার চেষ্টা করবো।

রোকেয়া গার্লস স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আনিসুর রহমান জানান, শিক্ষকদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও বিদ্যালয়ের সুশৃঙ্খল নিয়মের কারণে এই গৌরবময় ফলাফল। আগামীতে আরও ভালো ফলাফল অর্জনের জন্য সকল চেষ্টা অব্যহত রাখা হবে।

গুরুদাসপুর মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান জানান, মাদ্রাসার ফলাফল হতাশাজনক। তাছাড়া অন্য ফলাফল সন্তোষজনক। তবে মানসম্মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ফলাফল আরও ভালো হওয়া উচিৎ ছিল।

ad