কিশোরীকে ঘর থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগ

child rape
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে এক কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (১২ জুন) রাতে সদর উপজেলার মান্দারী মিয়াপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতিত কিশোরীকে চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে পুলিশ বলছে, পূর্ব বিরোধের জের ধরে ধর্ষণের নাটক সাজানো হয়েছে। ভিকটিমের পরিবারের অভিযোগ, ঘটনার পর বিষয়টি মীমাংসা করবে বলে কাউকে জানাতে নিষেধ করেছিল স্থানীয় মাতব্বররা।

জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে মিয়াপুর গ্রামের মাতব্বর সফি উল্যার ছেলে মনির তার সহযোগিদের নিয়ে ওই কিশোরীকে তার হাত-মুখ বেঁধে শোয়ার ঘর থেকে তুলে নিয়ে যায়। পরে বাইরের একটি বাগানের ভেতর নিয়ে লাগাতার ধর্ষণ করে সফি ও তার সহযোগিরা। নির্যাতনের ফলে কিশোরী জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাকে বিবস্ত্র অবস্থায় ফেলে পালিয়ে যায় ধর্ষকরা।

রাতে নির্যাতিতার মা তাকে ঘরে দেখতে না পেয়ে বাইরে বের হলে জ্ঞানহীন অবস্থায় দেখতে পায়। পরদিন কিশোরীর পরিবার তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, মঙ্গলবার (১২ জুন) রাতে শারীরিকভাবে আঘাতের কথা বলে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি চলে যায় কিশোরী। বুধবার (১৩ জুন) দুপুরে এসে ধর্ষণের কথা বললে বিষয়টি থানা পুলিশকে জানানো হয়।

চন্দ্রগঞ্জ থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) জাফর আহমদ বলেন, গণধর্ষণের ঘটনাটি সঠিক নয়। পূর্ব- বিরোধের জের ধরে প্রতিশোধ নিতে এই ধর্ষণ নাটক সাজানো হয়েছে। তবুও এ বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ad