গাজীপুরে শিশু ধর্ষণ: ধামাচাপার চেষ্টা দুই ইউপি সদস্যের

Rape
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে ১০ বছরের শিশুকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (২২ সেপ্টেম্বর) ধর্ষণের শিকার ওই শিশুকে মেডিকেল চেকআপের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত রুবেলকে আদালতে পাঠানো হবে বলে জানান মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

গত (১৫ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার রাজাবাড়ী ইউনিয়নের চিনাশুখানিয়া গ্রামে ওই শিশুকে ধর্ষণ করে প্রতিবেশী বিল্লাল ভূঁইয়া (৪৫)।

এদিকে, ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে ওই ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত নারী সদস্য সুফিয়া খাতুন ও ইউপি সদস্য কামরুজ্জামান চানুর বিরুদ্ধে। তারা ঘটনাটি স্থানীয় প্রশাসন বা অন্য কাউকে না জানাতে ভিকটিম শিশুর পরিবারকে হুমকি দেয়।

জানা যায়, ধর্ষক বিল্লাল ভূঁইয়া চিনাশুখানিয়া গ্রামের মৃত রহিম উদ্দিনের ছেলে। তার স্ত্রী ও ছেলে বিদেশে থাকে। গত ১৫ সেপ্টেম্বর সকালে প্রতিবেশী ওই শিশুটিকে ঝাড়ু দেয়ার কথা বলে ঘরে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে বিল্লাল। পরে বিষয়টি প্রকাশ না করতে হুমকি দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয় তাকে।

ওই শিশুর মা বলেন, গত মঙ্গলবার সকালে ইউপি সদস্য সুফিয়া খাতুন ও তার স্বামী বাড়িতে এসে তাদের ডেকে কাউকে কিছু না বলতে শাসিয়ে গেছেন।

রাজাবাড়ী ইউনিয়নের নারী ইউপি সদস্য সুফিয়া বেগম বলেন, শিশুর মা ভালো নয়। ধর্ষণের শিকার শিশু ও তার দুই বোনকে তিনিই কোলে-পিঠে করে মানুষ করেছেন। তাই একটু শাসন করেছেন।

শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মহসিন হোসাইন বলেন, তিনজনকে আসামী করে মামলা করেছে শিশুর মা। এ ঘটনায় রুবেল নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা গেলেও ধর্ষক বিল্লাল ও হেলালকে পাওয়া যায়নি। দুই ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ad