গুরুদাসপুরে চার তরুণকে কুপিয়ে জখম

gurudaspur
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: নাটোরের গুরুদাসপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে চারজনকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা।

শনিবার (৫ মে) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার চাঁচকৈড় হাটে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- পৌর সদরের খলিফাপাড়া গ্রামের সুমন সওদাগর (২৬), মিছিল সওদাগর (২৩), ইমান সওদাগর (২২) এবং পাবনা জেলার বেড়া উপজেলার সিজান (১৫)।

অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সুমন ও সিজানকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং মিছিল ও ইমানকে গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত ইমান ও মিছিল সওদাগর জানান, শনিবার চাঁচকৈড় হাটের বেদে পট্টির নিজেদের কসমেটিকসের দোকান শরিফ ষ্টোরে বেচা কেনা করছিলেন তারা।  সকাল ১০টার দিকে চাঁচকৈড় খামারনাচকৈড় মহল্লার আব্দুর রশিদের ছেলে জাহিদ নাইম, মেহেদী, অনিকসহ প্রায় দশজনকে তার দোকানের সামনে ডেকে আনে। প্রত্যেকের হাতেই ছুড়ি ছিল। এ সময় জাহিদসহ তার সাঙ্গপাঙ্গরা তাদের দোকানের ভেতর থেকে টেনে হেঁচরে বের করে ছুড়ি দিয়ে আঘাত করে। এতে তার বাম হাত কেটে যায়। এ সময় তাকে রক্ষায় এগিয়ে এলে সুমন ও সিজানকেও কুপিয়ে জখম করা হয়।

স্থানীয় অপু সওদাগর জানান, শুক্রবার রাতে তাড়াশের কুন্দইল মেলা থেকে ফেরার সময় ইমান সওদাগরদের সাথে জাহিদের বাগবিতণ্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ওই রাতের উভয়পক্ষের উপস্থিতিতে বিষয়টি আপোষ করা হয়। এরপর সকালে তারা এ কাণ্ড ঘটায়।

চাঁচকৈড় হাট বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি আনিসুর রহমান জানান, হাট চলাকালীন সময়ে অনকাঙ্খিতভাবে ওই ঘটনা ঘটেছে। বাজার পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জানান, সুমন ও সিজানের পিঠে ধাড়ালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। আঘাতটি ফুসফুস পর্যন্ত যেতে পারে। তাছাড়া প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। এ কারণে তাদের দুইজনকে রাজশাহী স্থানান্তর করা হয়েছে। এছাড়া মিছিলের বাম পাঁজরে এবং ইমানের বাম হাতের কুনইয়ে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে।

গুরুদাসপুর থানার এস আই শহিদুল ইসলাম জানান, ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

ad