গুরুদাসপুরে ৫ দিন ধরে নিখোঁজ স্কুলছাত্র মামা-ভাগ্নে

Gurudaspur Pic
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: নাটোরের গুরুদাসপুর থেকে নিখোঁজের পাঁচদিন পার হলেও এখনো সন্ধান মেলেনি দুই স্কুলছাত্রের। এ নিয়ে নিখোঁজ স্কুলছাত্রদের পরিবার ব্যাপক উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে। কেন না বিগত দিনে এই উপজেলা থেকে কয়েকটি শিশু নিখোঁজ হওয়ার পর তাদের জীবিত পাওয়া যায়নি।

নিখোঁজ ছাত্ররা গুরুদাসপুর উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের খামারপাথুরিয়া গ্রামের।

তারা হলেন- মো.সোহাগ (১০) ও মো.বাবু হোসেন (১৩)।  সোহাগ খামারপাথুরিয়া গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে ও ৫৬নং খামারপাথুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র এবং বাবু একই এলাকার মো.আলিমুদ্দিন হোসেনের ছেলে ও মৌখারা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্র।

নিখোঁজ  ছাত্রদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, সোহাগ ও বাবু সম্পর্কে মামা-ভাগ্নে। গত শনিবার সোহাগ স্কুলে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়। বাবুও স্কুলে যাওয়অর কথা বলে বের হয়। এরপর ওইদিন আর তারা বাড়ি ফেরেনি। পরে তাদের স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করেও তাদের সন্ধান পায়নি।

পরদিন সকালে তাদের স্কুলে খোঁজ নিয়ে জানা যায় দুজনই স্কুলে যায়নি। এ ঘটনায় সোমবার দুপুরে গুরুদাসপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। আজ বুধবার ৫ দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ তাদের সন্ধান জানাতে পারেনি।

৫৬ নং খামারপাথুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.শওকত আলী বলেন, তার নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি আমার জানা ছিল না। আমরা চাই তারা দুইজন সুস্থ অবস্থায় বাড়িতে ফিরে আসুক।

বড়াইগ্রাম উপজেলার মৌখাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, স্কুলে অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা চলছিল। শনিবারে গণিত পরীক্ষা ছিল, কিন্তু পরীক্ষায় বাবু উপস্থিত হয়নি।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম রেজা জানান, এ বিষয়ে থানায় জিডি হওয়ার পর পরই আমরা সকল থানায় বার্তা পাঠিয়েছি এবং গুরুত্ব সহকারে বিষয়টি দেখছি।

ad