জামালপুরে বন্যায় নিন্মাঞ্চল প্লাবিত

jamalpur flood
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও দু’দিনের বর্ষণে জামালপুরের যমুনা ও ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পেয়ে জেলার সার্বিক বন্যার পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। বন্যার পানিতে আকস্মিকভাবে প্লাবিত হয়েছে ইসলামপুর উপজেলার নিন্মাঞ্চল।

জামালপুরের পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবোর) পানি মাপক গেজ পাঠক আশরাফুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘন্টায় বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে ৩৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে যমুনা নদীর পানি বিপদ সীমা ছুঁই-ছুঁই করছে। যেভাবে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে তাতে আগামী ২৪ ঘন্টায় বিপদ সীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হবে।

সরেজমিনে জানা যায়, যমুনা তীরবর্তী ইসলামপুর ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ইসলামপুরের চিনাডুলী ইউনিয়নের ডেবরাইপ্যাচ বাজার এলাকায় সড়কে ভাঙন দেখা দিয়েছে। দক্ষিণ চিনাডুলী গ্রামের রাস্তটি বন্যার পানির প্রচন্ড স্রোতে ভেঙে ওই গ্রামের হাসত আলী, সিরাজ বেপারী, তোতা বেপারী, শাহাজাদা বেপারী, রেজাউল করিম, লালমিয়ারসহ অনেকের বসতভিটা বিলীন হয়ে উপজেলা সদরের সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। চিনাডুলী এসএন উচ্চ বিদ্যালয়, চিনাডুলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ চারটি বিদ্যালয়ের মাঠে ইতোমধ্যে বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে।

চিনাডুলী  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম জানান, বন্যার পানিতে রাস্তা ঘাট তলিয়ে গেছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় যমুনা তীরবর্তী অঞ্চলের মানুষদের মাঝে বন্যা আতঙ্ক বিরাজ করছে। এছাড়া দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

এ বিষয়ে পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী নবকুমার চৌধুরী বলেন, জেলার দুই উপজেলার কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। উজান থেকে নেমে আসা ঢলের কারণে যমুনা ও ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি হঠাৎ পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এমনটা হয়েছে। খুব শিগগিরই পানি নেমে যাবে বলে আশা করছি।

ad