ট্রাফিক সপ্তাহ: বাউফলে পুলিশের টার্গেট শুধু মোটরসাইকেল

Jagoran- Baufal , police, target, motorcycle ascending,
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর বাউফলে ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে পুলিশ বিশেষ চেকপোষ্ট বসিয়েছে। এ সময় পুলিশের সামনে দিয়ে বিভিন্ন অবৈধ যানবাহন চলাচল করলেও তাদের টার্গেট ছিল শুধুই মোটরসাইকেল আরোহী। এ ঘটনায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শনিবার (১১ আগষ্ট) বাউফলের ব্যস্ততম গোলাবাড়ি মোড়ে চেকপোষ্ট বসায় থানা পুলিশ। বেলা ১১টার দিকে এসআই সাইদুর রহমান হাসানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম সেখানে দায়িত্ব পালন করেন।

এ সময় দেখা যায় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা একে একে মোটরসাইকেল আটকের পর আরোহীদের কাগজপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন।

কিন্তু চেকপোষ্টে কর্তব্যরত পুলিশের সামনে দিয়ে টমটম ও ট্রলিসহ বিভিন্ন অবৈধ যানবাহন চলাচল করলেও তার দিকে কোনো প্রকার ভ্রুক্ষেপ নেই। অথচ অবৈধ টমটম ও ট্রলি গাড়ি নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে রয়েছে সীমাহীন ক্ষোভ।

বেপরোয়াভাবে অবৈধ টমটম ও ট্রলি চলাচল করায় প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। এতে প্রাণহানী ছাড়াও পঙ্গুত্ব বরণ করে অভিশপ্ত জীবন-যাপন করছেন অনেকেই। ফলে টমটম ও ট্রলি বন্ধ করা দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি এলাকাবাসীর।

থানা সূত্র জানায়, ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে পুলিশের অভিযানের প্রধান টার্গেট ছিল শুধুই মোটরসাইকেল। বাউফল থানায় ট্রাফিক আইনে দায়ের করা অর্ধশতাধিক মামলার অধিকাংশ যানবাহনই মোটরসাইকেল।

বাউফল থানার এসআই সাইদুর রহমান বলেন, শনিবার ট্রাফিক আইনে মোট ছয়টি মামলা রুজু করা হয়েছে। যানবাহনগুলো সবগুলোই মোটরসাইকেল ।

বাউফল থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে পুলিশের চেকপোষ্টে ট্রাফিক আইনে ইতিমধ্যে অর্ধশতাধিক মামলা রুজু হয়েছে। এখন থেকে সারা বছরই ফিটনেসবিহীন ও অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে।

তবে টার্গেট শুধু মোটরসাইকেল কেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, পর্যায়ক্রয়ে সব অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধেই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ad