ডোমারে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শিশুর মৃত্যু

Electrified, death
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডোমারে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে সাব্বির রহমান (১০) নামের দ্বিতীয় শ্রেণি পড়ুয়া এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে আরও দুই শিশু। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। সবাই এ ঘটনার জন্য পিডিবির গাফিলাতিকে দোষ দিচ্ছে।

বুধবার (১৬ মে) দুপুরে উপজেলার বাসুনিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড কাচারীপাড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সাব্বির বামুনিয়া কাচারীপাড়ার মো. আতাউর রহমানের ছেলে।

আহতরা হলো- কাচারীপাড়ার রবিউল ইসলামের মেয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া (১০) ও একই গ্রামের রবিউল আলমের মেয়ে রুবিনা আক্তার (১০)। এদের মধ্যে সুমাইয়ার অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

সুমাইয়ার বাবা রবিউল ইসলাম জানান, তিনজনই একই ক্লাসে লেখাপাড়া করে। দুপুরে তারা বাড়ির পাশে পুকুরে গোসল করার জন্য বের হয়ে পুকুরে যাওয়ার পথে জমির মধ্যে পিডিবির মেইন লাইনের তার পড়ে থাকায় সেই তারে সাব্বিরের পা স্পর্শ করলে সে বিদ্যুতায়িত হয়ে তারের মধ্যে আটকে থাকে।

তিনি জানান, এ সময় তাকে বাঁচাতে সুমাইয়া ও রুবিনা এগিয়ে আসলে তারাও বিদ্যুতায়িত হয়ে পরে। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার সাব্বিরকে মৃত ঘোষণা করেন।

সুমাইয়ার বাবা জানান, ডাক্তাররা তার মেয়ে সুমাইয়াকে রংপুরে নিয়ে যেতে বললেও টাকা না থাকায় তার পক্ষে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছিল না। পরে স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান মমিনুর রহমানের ছেলে বকুল ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সহযোগিতায় তাকে রংপুরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

ডোমার বিদ্যুৎ বিতরণ ও বিউবোর নির্বাহী প্রোকৌশলী মো. সাইফুল ইসলাম মন্ডল জানান, ঝড়ে পিডিবির ১০০ কিলোমিটার লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমরা প্রতিনিয়ত বিদ্যুৎ লাইন মেরামত করছি। ওই এলাকায় আজ লাইন মেরামত চলছে। মেরামত সম্পূর্ণ না হতেই তারা নিজেরাই মেইন লাইনে সংযোগ দিয়ে দিয়েছে, এজন্যই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. উম্মে ফাতিমা জানান, দুর্ঘটনার কথা শুনে আমি সুমাইয়ার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়ে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছি।

ad