তালতলীতে মাত্র ৭৬ ভোট পেল বিএনপির প্রার্থী!

up_election
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: তালতলীর শারিকখালী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মো. বাহাদুর তালুকদার ৭৬ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছেন।

গত ২৯ মার্চ অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল বাশার বাদশা তালুকদার ২৫৩৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী জিএম মোশাররফ হোসেন ১৯৪৭, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী সুলতান আহম্মেদ মাষ্টার ১৪০২ ও বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী বাহাদুর তালুকদার ৭৬ ভোট পেয়েছেন।

তালতলী নির্বাচন অফিসার মো. আলিমদ্দিন বলেন, কোনো প্রার্থী কাস্টিং ভোটের ৮ ভাগের একভাগ ভোট না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। সেই হিসেবে বিএনপি প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন, দলীয় সিদ্ধান্ত ছাড়াই সাবেক সাংসদ মতিয়ার রহমান তালুকদার অযোগ্য প্রার্থী মনোনয়ন দেয়ায় দলের ভরাডুবি হয়েছে।

শারিকখালী ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক নাসির উদ্দিন দফাদার বলেন, দলের যোগ্য প্রার্থী থাকা সত্ত্বেও সাবেক সাংসদ মতিয়ার রহমান তালুকদার নেতা-কর্মীদের মতামত না নিয়ে নিজের ইচ্ছামত একজন অপরিচিত ও অযোগ্য লোককে মনোনয়ন দিয়েছেন। ফলে বিএনপি প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। এতে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে।

তালতলী উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন সিকদার বলেন, ইউনিয়ন ও উপজেলা বিএনপির সভা ছাড়াই সাবেক সাংসদ মতিয়ার রহমান তালুকদার প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছেন। একারণেই এ দশা হয়েছে।

সাবেক সাংসদ ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আলহাজ মতিয়ার রহমান তালুকদার বলেন, আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী ও প্রশাসনের লোকজন বিএনপির নেতা-কর্মীদের প্রচারণা করতে না দেয়ার বিএনপি প্রার্থীর এ ভরাডুবি হয়েছে।

ওই ইউনিয়নে যোগ্য প্রার্থী থাকা সত্ত্বেও তাদের মনোনয়ন দিলেন না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যোগ্য প্রার্থীরা মনোনয়ন নিতে অনিহা প্রকাশ করায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছেন। আমি কোনো মনোনয়ন দেইনি।

ad