নারী এসআই’র সাথে ভাইস চেয়ারম্যানের পরকীয়া, অতঃপর

porokia
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের রাজনগর থানার এসআই নাজমা বেগমের সাথে থানায় আসা যাওয়ার সূত্র ধরে পরিচয় হয় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের। এই পরিচয়ের সূত্র ধরেই সন্তান থাকার পরও একসময় পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন দু’জন। এরপর গোপনে সেরে ফেলেন বিয়ে। তবে বিয়ের পর ফারুক স্ত্রী নাজমাকে বাড়িতে উঠানো নিয়ে শুরু করেন তালবাহানা।

এরপর স্ত্রীর মর্যাদা দাবিতে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হন নাজমা। সেখানে ফারুককে না পেয়ে চালান ভাঙচুর। পরে তাকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, নাজমা ও ফারুকের সম্পর্কের বিষয়টি এলাকার সবার জানা। তারা দু’জন গোপনে বিয়ে করলেও একসাথে থাকেন না।

সূত্র জানায়, গত বৃহস্পতিবার বিকালে এসআই নাজমা বেগম ভাইস চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের বাড়িতে যান। ওই সময় বাড়িতে শুধু কেয়ারটেকার ছিল। পরে নাজমা বেগম ঘরের মালামাল তছনছ করেন। এ সময় কেয়ারটেকারে সঙ্গে নাজমার বাকবিতণ্ডাও হয়।

তবে ভাঙচুরের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন এসআই নাজমা বেগম। পরকীয়ার ব্যাপারেও তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

এ ব্যাপারে কথা বলতে ভাইস চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের মোবাইলে ফোন দেয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

পরকীয়ার বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে রাজনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বণিক বলেন, নাজমা মানুষের সঙ্গে খারাপ আচরণ করতো তাই ক্লোজ করা হয়েছে।

ad