প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে ধর্ষক, নিরাপত্তাহীনতায় ভিকটিম

Jagoran- rape, murder
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: গাজীপুরের কাপাসিয়ায় এক কিশোরীকে ধর্ষণে অভিযুক্ত যুবক প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনার ৭ মাস অতিবাহিত হলেও থানা পুলিশ ধর্ষককে গ্রেপ্তার করতে না পারায় এ মামলা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।  অন্যদিকে, ভিকটিমের পরিবারকে মামলা তুলে নিতে প্রতিনিয়ত হুমকি দেয়া হচ্ছে। যে কারণে ভিকটিম ও তার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

জানা যায়, উপজেলার কাপাসিয়া গ্রামের গায়েন বাড়িতে ভাড়া থাকতেন এক দম্পতি। ওই দম্পতি ফেরি করে সংসার চালান। যে কারণে প্রায় সময়ই তারা বাড়ি থাকতেন না। এই সুযোগে বাড়ির পাশের মুদি দোকানী ও রিক্সা গ্যারেজের মালিক ইসমাইল তাদের কিশোরী মেয়েকে উত্যক্ত করতো।

চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি রাতে কিশোরী ইসমাইলের দোকানে যায়। এ সময় ইসমাইল কিশোরীকে বিয়ের কথা বলবে বলে দোকানের পিছনে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে ইসমাইল ওই কিশোরীর দুই হাত ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে জোরপূর্বক দুই দফা ধর্ষণ করে। সে সময় কিশোরী জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাকে দোকানের ভেতর নিয়ে আটকে রাখা হয়। পরে টের পেয়ে পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

ঘটনার পরদিন গাজীপুরের কাপাসিয়া থানায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে ধর্ষক ইসমাইলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। ধর্ষক কাপাসিয়া গ্রামের রাহুর ছেলে।

তবে ঘটনার ৭ মাস অতিবাহিত হলেও থানা পুলিশ কোনো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। ধর্ষক প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করছে না। তবে সম্প্রতি স্থানীয় সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি থানার ওসি মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিককে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছেন।

এদিকে, ভিকটিমের পরিবারকে মামলা তুলে নিতে ধর্ষক ও তার পরিবার প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে। ধর্ষক প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের ভয়ে ফেরি করতেও বের হতে পারছে না ভিকটিমের মা।

এ বিষয়ে কথা বলতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. শফিকুল ইসলামকে তার মুঠোফোনে বার বার ফোন দিলেও তিনি ফোন ধরেননি।

এ ব্যাপারে কাপাসিয়া থানার ওসি বলেন, রিপোর্ট এলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ad