প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৭৫ বছরের বৃদ্ধ

Jagoran- rape 1
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: গাজীপুরের কাপাসিয়ায় ১২ বছর বয়সী এক প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণের দায়ে হাছেন আলী (৭৫) নামে এক বৃদ্ধকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শুক্রবার (১০ আগস্ট) রাতে কাপাসিয়া থানা পুলিশ হাছেনকে গ্রেপ্তার করে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে ওই শিশুটি সিঙ্গুয়া গ্রামে ধর্ষণের শিকার হয়। পরে ভিকটিমের পরিবারের দারিদ্রতার সুযোগ নিয়ে ধর্ষকের পক্ষ নিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য ইদ্রিস আলী বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। পরে স্থানীয় সাংবাদিকদের তৎপরতায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাকছুদুল ইসলামের নির্দেশে ও থানার  ওসির সহযোগিতায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

শনিবার দুপুরে ভিকটিমকে ডাক্তারি পরিক্ষার জন্য গাজীপুর সদর হাসপাতালে এবং ধর্ষককে কোর্টে পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, উপজেলার ঘাগটিয়া ইউনিয়নের সিঙ্গুয়া গ্রামের অন্ধ ভিক্ষুক মজলু মিয়া ও তার স্ত্রী আনোয়ারা উভয়েই ভিক্ষা করে সংসার চালান। তাদের ১২ বছর বয়সী বাক প্রতিবন্ধী কন্যাকে প্রতিদিনের মতো বাড়িতে রেখে গত বৃহস্পতিবার ভিক্ষে করতে বের হয়। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে প্রতিবেশী হাছেন আলী ওই কিশোরীকে ফুসলিয়ে একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় পাশের বাড়ির দুইজন বিষয়টি দেখে হাতেনাতে ধর্ষককে ধরে ফেলে।

এক পর্যায়ে ধর্ষক হাছেন আলী এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। এরপর এলাকার স্থানীয় ইউপি সদস্য ইদ্রিস আলী ধর্ষকের পক্ষ নিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে।

ঘাগটিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহীনুর আলম বলেন, বিষয়টি তিনি আগে জানতেন না। তবে তিনি যে কোনো আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলে জানান।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য ইদ্রিস আলী ধর্ষণের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি তার বাড়ির পাশে। তবে ভিকটিমের পরিবার ঘটনার সাথে সাথে আইনের আশ্রয় না নেয়ায়, তার কিছু করার ছিল না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাকছুদুল ইসলাম জানান, সাংবাদিকদের মাধ্যমে ধর্ষণের বিষয়টি জানার পর তাৎক্ষণিক থানা পুলিশকে জানাই। পরে রাতেই ধর্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

কাপাসিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবুবকর সিদ্দিক জানান, শিশুটিকে ডাক্তারি পরিক্ষার জন্য গাজীপুর তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।  রিপোর্ট পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ad